মা দিবস: মা’কে দেবার জন্য সেরা গিফট টিপস 0 1125

mothers day 2018 in bd

বিশ্ব মা দিবস ২০১৮: কি হতে পারে মায়ের জন্য পারফেক্ট উপহার

আমাদের জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে তাঁর উপস্থিতি অনুভব করা যায়। তাঁর অবদান সম্পর্কে বলতে গেলে যেন শব্দ ফুরিয়ে যায়। মা- এই একটি শব্দের মধ্যে লুকিয়ে আছে মায়া, মমতা, ভালোবাসা। প্রতিদিন হয়ত ব্যস্ততার মাঝে মা-কে বলা হয় না কতটা ভালোবাসি, সেই জন্যেই হয়তো মা’র জন্য একটা দিন আলাদা করে রাখা – মা দিবস।

মা দিবস উপলক্ষ্যে প্রতিটি সন্তানেরই পরিকল্পনা থাকে মা’র জন্য বিশেষ কিছু করার। প্রতিটি মা আলাদা, তাদের পছন্দের জায়গাটাও আলাদা। একজন কর্মজীবী মা এবং গৃহিণী মা’র মধ্যে অনেক ধরণের তফাৎ থাকলেও, তাদের সন্তানের প্রতি স্নেহের মাত্রা একই। তাই মা দিবসে মা-কে চমকে দেওয়ার মতো উপহারগুলোর কথা আজ আপনাকে আমি জানিয়ে দিচ্ছি। কিপ ইট আ সিক্রেট!

কর্মজীবী মায়েদের জন্য উপহার হতে পারে স্মার্টওয়াচ কিংবা স্মার্টফোন। এই সরঞ্জামগুলোর নানানরকম বৈশিষ্ট্য কর্মব্যস্ততার মধ্যে মাকে সাহায্য করবে নিজের সুবিধামত সময়সূচি বানিয়ে কাজ ভাগ করে নিতে, কিংবা প্ল্যান করতে। তাছাড়া কর্মজীবী মায়েরা যেহেতু কাজের জন্য স্বাস্থ্যের দিকে খেয়াল রাখতে পারেন না, সেক্ষেত্রে মাকে উপহার দিতে পারেন এক্সারসাইজ ইকুইপমেন্ট যাতে অফিস শেষে ঝামেলাহীন ভাবে মা ঘরেই ব্যায়াম করতে পারেন।

গৃহিণী মায়েদের ক্ষেত্রে উপহার হতে পারে অন্য ধরনের। প্রতিদিন গৃহিণী মায়েরা অক্লান্ত পরিশ্রম করে ঘরের সব কাজ করেন, তাই তাঁদের জীবন যাতে সহজ হয় এমন উপহার দেয়া সমীচীন। জুসার মেশিন, মাইক্রোওয়েভ ওভেন অথবা ননস্টিক কুকিং প্যানের মত উপহারগুলো, মাকে এনে দিতে পারে স্বস্তি। কিন্তু খালি উপহার দিয়েই কিন্তু আপনার দায়িত্ব শেষ না, ঘরের কিছু কাজের দায়িত্ব নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নিন এবং যথার্থ মূল্যায়ন করুন মায়ের কাজের এবং ত্যাগের।

এছাড়া মায়েরা বেশিরভাগ সময় সবার যত্ন নেয়ার চিন্তায়, নিজেদের দিকে নজর দেয়ার কথা একদমই মনে রাখেন না, তাই মা দিবসে মাকে দিতে পারেন প্রসাধনী সামগ্রী। হাজারো কাজের ফাঁকে, মাকে মনে করিয়ে দিন নিজের জন্য কিছুটা সময় ব্যয় করার।

এই তো গেল উপহারের কথা কিন্তু সবশেষে বলব, মায়ের জন্য নানান রকম উপহারের পাশাপাশি মাকে দিন আপনার সময়। আমাদের ছোট্ট জীবনে, চিরদিন মা থাকবেন না কিন্তু তাঁর সাথে কাটানো মুহূর্ত অবলম্বন করেই এবং স্মৃতি রোমন্থন করেই জীবনের কঠিন সময়গুলো অতিক্রম করা সহজ হবে। কাজের ফাঁকে মাকে একটা ফোন কল, হোক না সেটা শুধুমাত্র ১ মিনিটের জন্য, আপনাকে কাজ করতে উজ্জীবিত করবে এবং সাথে মা’র মুখেও ফুটবে অমূল্য হাসি।

মা দিবস সম্পর্কে আরও পড়ুনঃ

মা দিবস হোক ৩৬৫ দিনই

Previous ArticleNext Article

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

css.php