Daraz Brand Carnival-daraz.com.bd

দারাজ ব্র্যান্ড কার্নিভাল: সেরা সব ডিল একনজরে

এখন সেরা দামে সেরা ব্র্যান্ডের পণ্য কেনাকাটা চলবে মাসজুড়ে। দারাজের ৬ষ্ঠ বর্ষপূর্তি ক্যাম্পেইনের সেরা সব ডিল নিয়ে আয়োজন করা হয়েছে দারাজ ব্র্যান্ড কার্নিভাল– যেখানে দেশি-বিদেশী নামী ব্র্যান্ডগুলো বিভিন্ন পণ্যের বিশাল সমাহার নিয়ে অপেক্ষা করছে। সাথে থাকছে গ্রাহকদের জন্য দারুণ সব ডিল। একই ছাদের নিচে এত ধরণের বিখ্যাত ব্র্যান্ডের অংশগ্রহণে এমন আয়োজন শুধু দারাজেই সম্ভব। তাই মানসম্পন্ন পণ্য কেনা এখন আরো সহজ ও সাশ্রয়ী। সেরা সব ডিল নিয়ে কার্নিভাল চলবে ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

চলুন এক নজরে দেখে নেওয়া যাক ব্র্যান্ড কার্নিভালের সেরা সব ডিলগুলো-

প্রিয় ব্র্যান্ডের সেরা পণ্য

দারাজ ব্র্যান্ড কার্নিভালে থাকছে গ্রাহকদের পছন্দের সব ব্র্যান্ডের পণ্য। ৫১টি স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক ব্র্যান্ড অপেক্ষা করছে সেরা সব ডিল নিয়ে। তাই পছন্দের ব্র্যান্ডের আস্থাভাজন সব পণ্য সুলভে কিনলে চাইলে ব্র্যান্ড কার্নিভাল হতে পারে আপনার সেরা গন্তব্য। সাথে এক্সক্লুসিভ ডিসকাউন্ট ও ভাউচার তো থাকছেই।

brand GIF

মানসম্পন্ন পণ্যের দারুণ কালেকশন

যে কোন ব্র্যান্ডের ব্র্যান্ড হওয়ার পেছনের মূল কারণ পণ্যের মান। ব্র্যান্ড কার্নিভালে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের প্রায় ৬০০টিরও অধিক সেরা মানের পণ্য কেনাকাটা করা যাবে বাংলাদেশের যেকোন বাজারের চেয়ে তুলনামূলক সাশ্রয়ী দামে। তাছাড়া বাড়তি পরিশ্রম কমাতে দারাজের হোম ডেলিভারি তো থাকছেই।

৩০০+ এক্সক্লুসিভ ডিল

দারাজ অ্যানিভার্সারি ক্যাম্পেইনের ৩০০টিরও বেশি এক্সক্লুসিভ ডিল থাকছে এই ব্র্যান্ড কার্নিভালে। তাই সেরা ডিলটি লুফে নেয়ার সুযোগ থাকছে মাসজুড়েই- নিজের প্রিয় ব্র্যান্ডের সেরা পণ্যের কেনাকাটায়। বিভিন্ন আকর্ষণীয় ডিসকাউন্ট কুপন ও ভাউচারের মাধ্যমে সবচেয়ে কম দামে নির্ভরযোগ্য পণ্য কেনার সুবর্ন সুযোগ থাকছে দারাজ ব্র্যান্ড কার্নিভালে।

Visit Daraz Brand Carniva

ফ্রি শিপিং

সবচেয়ে সেরা দামে সেরা মানের ব্র্যান্ডের পণ্য কেনাকাটার সাথে যদি থাকে ফ্রি শিপিং- তাহলে তো পোয়াবারো। অনলাইন শপের নামটি যখন দারাজ এরকম আশা তো করাই যায়। ডেটল, প্যারাস্যুট, সেন্সোডাইন, আরওকে সহ বিভিন্ন সেরা ব্র্যান্ড গ্রাহকদের দিচ্ছে ফ্রি শপিং এর সুবিধা। এবার খরচ ছাড়াই ঘরে পৌঁছে যাবে সেরা পণ্যটি।

১টা কিনলে ১টা ফ্রী

দারাজ ব্র্যান্ড কার্নিভালে থাকছে ‘বাই ওয়ান গেট ওয়ান’ অফার। তাই যত খুশি তত- শপিং হবে মনমতো। জয়া, স্মাইল, ভাহ, কেলোগস, লাইফবয়, নিও-কেয়ার সহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বাই ওয়ান গেট ওয়ান অফার ব্র্যান্ডপ্রেমীদের কাছে হতে পারে ঈদের চাঁদের মতো খুশির কারণ। তাহলে আর দেরি কিসের?

miami vice deal with it GIF

এক্সক্লুসিভ কম্বো প্যাকেজ

এছাড়া থাকছে এক্সক্লুসিভ কম্বো প্যাকেজ- আকর্ষণীয় সাশ্রয়ী মূল্যে যেকোন দুটি পণ্য একসাথে কেনার সুযোগ। প্রাণ, রাঁধুনি, ড্যানিশ সহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের অসংখ্য কম্বো প্যাকেজের মধ্য থেকে নিজের জন্য সেরা পণ্যটি নিতে চাইলে এখনই সুযোগ। দারাজের গ্রাহকদের তুমুল আগ্রহ থাকে কম্বো প্যাকেজ নিয়ে। তাই স্টক ফুরিয়ে যাবার আগেই বেছে নিন নিজের কম্বোটি।

the hangover GIF

ডায়াপার ফ্ল্যাশ সেল অফার

বাচ্চাদের জন্য উন্নতমানের ডায়াপার কিনতে চাইলে আপনার নিশ্চিন্ত গন্তব্য হতে পারে দারাজ ফ্ল্যাশ সেল অফার। আর ব্র্যান্ড কার্নিভালে থাকছে ডায়াপার ফ্ল্যাশ সেল অফার- সবচেয়ে সুলভ মূল্যে হাগিজ, নিও-কেয়ার, ম্যামিপোকো, মলফিক্স এর মতো সেরা সব ব্র্যান্ডের ডায়াপার কেনার দারুণ সুযোগ।

তাহলে আর কিসের অপেক্ষা? এখুনি ভিজিট করুন দারাজ ব্র্যান্ড কার্নিভাল- আর শপিং করুন নিশ্চিন্তে সেরা পণ্য ও সেরা দামে। আপনার পছন্দের ব্র্যান্ড রয়েছে আপনারই অপেক্ষায়।

এছাড়া আরো দেখতে পারেন-
ডিমার্ট থেকে সহজে পণ্য অর্ডার করার উপায়

grocery-mela-11.11-daraz.com.bd

দারাজ থেকে অনলাইন গ্রোসারি শপিং কেন করবেন?

অনলাইনে গ্রোসারি কেনার সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ও ক্রেতাদের কাছে আস্থাভাজন মাধ্যম দারাজের অনলাইন গ্রোসারি শপ। বর্তমান ব্যস্ত নগর জীবনে দৈনন্দিন কেনাকাটার জন্য সময় বের করাটা কিছুটা ঝামেলাই বটে।  এছাড়া সময় ও শ্রম বাঁচিয়ে ঘরে বসেই যদি ব্র্যান্ডের সেরা গ্রোসারি পণ্য সুলভ মূল্যে পাওয়া যায়, তবে কে চাইবে ঘাম ঝরিয়ে মাসের বাজার করতে? এসব কারণে ধীরে ধীরে দারাজ বাংলাদেশ ক্রেতাদের কাছে হয়ে উঠছে বাংলাদেশের সেরা অনলাইন গ্রোসারি সুপারমার্কেট। এরই ধারাবাহিকতায় দারাজ সেরা সব ডিল নিয়ে সাজিয়েছে দারাজ ১১.১১ গ্রোসারি মেলা। তবে গ্রোসারি পণ্য ছাড়াও অন্যান্য সামগ্রী সাশ্রয়ী দামে কিনতে চাইলে দারাজ ১১.১১ সেল ক্যাম্পেইনে চোখ রাখতে পারেন নিশ্চিন্তে। 

জেনে নিন দারাজ বাংলাদেশ থেকে অনলাইনে গ্রোসারি কি কারণে কিনবেন-

  • বাজারের সেরা দাম
  • মানসম্মত জেনুইন পণ্য
  • দ্রুতগতির এবং ফ্রি হোম ডেলিভারি
  • বিকাশ পেমেন্টে তাৎক্ষনিক ক্যাশব্যাক
  • সেরা অফার ও আকর্ষণীয় মূল্যছাড়
  • দেশব্যাপী অর্ডার করার সুবিধা

Stranger Things GIF

বাজারের সেরা দাম:

Image result for best price

 

দারাজ থেকে অনলাইনে গ্রোসারি শপিং করার মূল আকর্ষণই হলো পণ্যের আসল দামের চেয়ে অপেক্ষাকৃত কম মূল্য। এখানে আপনি পাবেন সেরা মানের পণ্য বাজারের সবচেয়ে কম দামে। তাই পরিবারের সবার জন্য কম দামে গ্রোসারি শপিং করলে সেরা মানের পাশাপাশি পাচ্ছেন অর্থ সাশ্রয়ের দারুণ সুযোগ।

মানসম্মত জেনুইন পণ্য:

genuine products on daraz bd

 

দারাজ দিচ্ছে বাজারের সেরা দামে সব আসল প্রোডাক্ট। বাংলাদেশের বৃহত্তম অনলাইন শপে থাকছে অনুমোদিত ডিস্ট্রিবিউটরের কাছ থেকে সংগৃহীত ১০০% অথেনটিক সব পণ্য। তাই মান নিয়ে কোনো আপস করতে না চাইলে আজই ভিজিট করতে পারেন দারাজ গ্রোসারি শপে।

 

দ্রুতগতির এবং ফ্রি হোম ডেলিভারি:

free home delivery in bangladesh

 

দ্রুততম সময়ে পণ্য ডেলিভারির জন্য দেশব্যাপী থাকছে দারাজ বাংলাদেশের নিজস্ব পণ্য ডেলিভারি হাব। তাই দ্রুতগতির ডেলিভারি এখন আর কোনো স্বপ্ন নয়। অর্ডারের পর সবচেয়ে সংক্ষিপ্ত সময়ে গ্রাহকের হাতে গ্রোসারি তুলে দিতে দারাজ বদ্ধপরিকর।

ইনস্ট্যান্ট ক্যাশব্যাক:

Image result for cashback offer

 

দারাজ থেকে গ্রোসারি কেনাকাটার পেমেন্ট করলেই পাচ্ছেন নির্দিষ্ট কমিশনের ইনস্ট্যান্ট ক্যাশব্যাক। তাই অতিরিক্ত ডিসকাউন্ট পেতে বেছে নিন দারাজের পেমেন্ট পার্টনার জনপ্রিয় ব্যাংকিং পদ্ধতিগুলো- এখন যত বেশি পেমেন্ট, তত বেশি ক্যাশব্যাক।

সেরা অফার ও আকর্ষণীয় মূল্যছাড়:

Image result for best offer

 

দারাজ অনলাইন শপ ভিজিট করে আপনার পরিবারের প্রয়োজনীয় বিভিন্ন গ্রোসারি পণ্যসামগ্রী ক্রয়ে থাকবে আকর্ষণীয় মূল্যছাড়। তাই সবার আগে লুফে নিন আপনার জন্য উপযুক্ত সেরা ডিলটি।

দেশব্যাপী অর্ডার করার সুবিধা:

Image result for mini bangladesh map

 

দারাজ নিয়ে এলো বাজারের সেরা দামে গ্রোসারি সামগ্রী। দেশের যে কোন স্থান থেকে অর্ডার করে অনলাইনে কিনে নিতে পারবেন গ্রোসারি প্রোডাক্ট। দেশের সেরা দামে গ্রোসারি পণ্য অর্ডার করলেই দেশব্যাপী দ্রুত হোম ডেলিভারির মাধ্যমে আপনার কাছে পৌঁছে যাবে পছন্দের সেরা গ্রোসারি পণ্য।

 

বিস্তারিত জানতে দেখতে পারেন:

দারাজ ১১.১১ গ্রোসারি মেলা: সেরা মানের সেরা বাজার

daraz 11.11 grocery mela

গ্রোসারি মেলা – সেরা দামে সেরা গ্রোসারি

বাংলাদেশের সেরা অনলাইন গ্রোসারি ক্যাম্পেইন “গ্রোসারি মেলা” শুরু করতে যাচ্ছে বৃহত্তম বহুজাতিক ই-কমার্স ওয়েবসাইট দারাজ। এই ক্যাম্পেইনে নানা ধরণের মূল্যছাড় ও অফার পাওয়া যাবে চাল, ডাল, মসলা, তেলসহ নানাবিধ অনেক মুদি-মনোহরী ও প্রয়োজনীয় সদাই পণ্য ক্রয়ের ক্ষেত্রে। সকল পণ্যে নিশ্চিত ছাড়, অসংখ্য ভাউচার, ফ্রি ডেলিভারি, ফ্রি গিফট, ১১ টাকার ডিলসহ বিভিন্ন সেরা ডিল উপভোগ করতে ভিজিট করতে পারেন দারাজ ১১ ১১ সেল মেলায়, আর জিতে নিন রুদ্ধশ্বাস আকর্ষণীয় সব অফার।

গ্রোসারি মেলা: থাকছে বিশেষ আকর্ষণ

দারাজ এবার নিয়ে এলো ‘গ্রোসারি মেলা’ ক্যাম্পেইন। উক্ত ক্যাম্পেইনে আপনার পরিবারের প্রয়োজনীয় বিভিন্ন গ্রোসারি পণ্যসামগ্রী ক্রয়ে থাকবে সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ পর্যন্ত আকর্ষনীয় মূল্যছাড়। সেই সাথে থাকছে জনপ্রিয় মোবাইল ব্যাংকিং পদ্ধতি বিকাশ ও বিভিন্ন সেরা পেমেন্ট গেটওয়ের মাধ্যমে পেমেন্ট করলে নিশ্চিত ক্যাশব্যাক সুবিধা। তাই এখন সেরা দামে মাসের বাজারের গ্রোসারি পণ্য কিনে উপভোগ করুন সেরা অনলাইন শপিং -এর দুর্দান্ত অভিজ্ঞতা।

প্রয়োজনীয় গ্রোসারিঃ যা চান পাবেন

buy groceries online at daraz bd

 

প্রয়োজনীয় মাসের বাজার সারতে এখন থেকে আপনাকে আর বাজারে বাজারে ছোটাছুটি করতে হবে না। আপনার পরিবারের নিত্যদিনের দৈনন্দিন কেনাকাটায় দারাজ আপনাকে দেবে বাংলাদেশের সেরা গ্রোসারি শপিং এর অভিজ্ঞতা- কম দাম, অধিক মূল্যছাড়, দ্রুত হোম ডেলিভারি। এককথায়, যা কিছু আপনার পরিবারের জন্য প্রয়োজন, তার সবই পাবেন দারাজে।

 

জেলায় জেলায় নিজস্ব হাব: দ্রুতগতির হোম ডেলিভারিhome delivery by daraz bd

দেশের যে কোন স্থান থেকে অর্ডার করে অনলাইনে কেনা যাবে গ্রোসারি। ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা, সিলেট, কুমিল্লা, রংপুর, রাজশাহী, বরিশাল, যশোর, ময়মনসিংহ, কুষ্টিয়া, দিনাজপুর, ফেনী, গাজীপুর, বগুড়া সহ সমগ্র বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি জেলায় স্থাপিত হয়েছে দারাজ বাংলাদেশের নিজস্ব ডেলিভারি হাব। ‘দারাজ ১১.১১ গ্রোসারি মেলা’ থেকে পণ্য অর্ডার করলেই বাংলাদেশের যেকোন স্থানে আপনি উপভোগ করতে পারবেন দ্রুততম ডেলিভারি। সারাদেশের ৪৮টি পিকপয়েন্ট থেকে গ্রাহক সংগ্রহ করতে পারবেন ফ্রি ডেলিভারি।

ই-কমার্স ছড়াবে প্রত্যন্ত অঞ্চলে

দারাজ বাংলাদেশ চায় অদূর ভবিষ্যতে দেশের প্রতিটি প্রান্তে মানুষের দোরগোড়ায় পণ্য পৌঁছে দিতে। দারাজ বাংলাদেশ বিশ্বাস করে দেশব্যাপী ই-কমার্স সেবা ছড়িয়ে দেবার মাধ্যমে বাংলাদেশের ই-কমার্সের প্রসার ক্রমাগত বাড়বে। দেশে ই-কমার্স ক্ষেত্রের ভিত্তি আরও শক্ত হবে, যা বড় প্রভাব ফেলবে জাতীয় অর্থনীতিতে।

E-commerce in Bangladesh

দূর হবে শহর-গ্রাম অসমতা

বিশ্বায়নের এই যুগে বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান উন্নয়নশীল দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতে উন্নয়নের ছোঁয়া দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে দারাজ বাংলাদেশ। দারাজের সারা দেশে হোম ডেলিভারির এই উদ্যোগ অচিরেই শহর ও মফস্বলের মধ্যে পণ্যের সহজপ্রাপ্যতার অসমতা দূর করবে। ডিজিটাল বাংলাদেশে এখন থেকে অনলাইন শপিং -এ আর থাকবে না সুবিধার বৈষম্যতা। গ্রোসারি শপিং এর ক্ষেত্রে বড় শহরের মতই সমান সেবা পাবেন মফস্বলের বাসিন্দারা।

ব্যবহার করতে পারেন দারাজের অ্যাপ

Daraz App ব্যবহার করেও এখন সহজে মোবাইল থেকে অনলাইন শপিং করা যাবে স্বাচ্ছন্দ্যে। অ্যাপল স্টোর অথবা গুগল প্লে-স্টোর থেকে আজই ডাউনলোড করে নিতে পারেন দারাজ মোবাইল অ্যাপ আর উপভোগ করুন অনলাইন শপিং বাংলাদেশের যে কোন জায়গাতে বসেই- আরো সহজে, আরো স্বাচ্ছন্দ্যে।

নতুন ক্রেতাদের জন্য দারাজ ভাউচার

দারাজে প্রথমবার শপিং করা ক্রেতাদের জন্য থাকছে অসংখ্য ভাউচার। এইসব ভাউচার ব্যবহার করে প্রথমবারের গ্রোসারি শপিং এ জিতে নিন বিশাল মূল্যছাড়।  

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খোঁজ নিন দারাজের

দারাজ বাংলাদেশের যে কোন ক্যাম্পেইন নিউজ বা আপডেট পেতে সাবস্ক্রাইব করুন দারাজ নিউজলেটারে, ডাউনলোড করুন দারাজ অ্যাপ, চোখ রাখুন দারাজ ফেসবুক পেইজে, ফলো করুন টুইটার ও ইনস্টাগ্রাম।

এছাড়াও দেখতে পারেনঃ

মাসের বাজার এখন অনলাইনেই

daraz 11.11 grocery mela

মাসের বাজার সারতে ‘দারাজ ১১.১১ গ্রোসারি মেলা’ এখন অনলাইনে

ঘরে বসে গ্রোসারি শপিং বাংলাদেশের অনলাইন মার্কেটের খুব বেশি পুরোনো প্রথা নয়। ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মে দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন মার্কেটপ্লেস দারাজ বাংলাদেশ ২০১৭ সালের জানুয়ারী মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে ‘মাসের বাজার’ ধারণাটি নিয়ে অনলাইনে গ্রোসারি ক্যাম্পেইন শুরু করে। এখন প্রতি মাসের শেষেই প্রায় সপ্তাহব্যাপী চলে এই ক্যাম্পেইন। দেশের বৃহত্তম অনলাইন মেলা দারাজ ১১.১১ সেল এর হাত ধরে এবার ১১ নভেম্বর  থেকে শুরু হতে যাচ্ছে দারাজ ১১.১১ গ্রোসারি মেলা– যেখানে পাওয়া যাবে সেরা দামে সেরা মাসের বাজার।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক গ্রোসারি মেলা’র সেরা আকর্ষণগুলো-

জনপ্রিয়

প্রথাগত ঝক্কি-ঝামেলাপূর্ণ শপিং থেকে সময়, টাকা বাঁচিয়ে যাতে ক্রেতারা সেরা পণ্য বাসায় বসে কিনতে পারেন, সেজন্যই দারাজ বাংলাদেশ শুরু করেছে ‘গ্রোসারি মেলা’ ক্যাম্পেইন। আর ক্রেতাদের আগ্রহের কারণে দারাজের ‘মাসের বাজার’ ক্যাম্পেইন দিন দিন হয়ে উঠছে বেশ জনপ্রিয়।

সহজ

masher bazar products of daraz.com.bd

যান্ত্রিক শহরে সময় বাঁচাতে কে না চায়? নিজের ঘর, অফিস অথবা গাড়িতে বসেই যদি অনলাইনে শপিং করা যায়, তবে কে করতে চাইবে বাজার ঘুরে ঘুরে প্রথাগত কেনাকাটা! দারাজ বাংলাদেশের ‘মাসের বাজার’ বাংলাদেশি ক্রেতাদের দিচ্ছে প্রাণবন্ত অনলাইন শপিং –এর অনাবিল আনন্দ। প্রয়োজনীয় নানা পণ্য পাবেন দারাজে, একসাথে! তাছাড়া ঢাকাবাসীরা ২৪ ঘন্টার মধ্যেই ডেলিভারিও পেয়ে যাবেন।

সাশ্রয়ী

masher bazar daraz bd products

দারাজ থেকে মাসের বাজার করুন সেরা ডিসকাউন্টে। মাসের বাজারে থাকছে বিভিন্ন পণ্যে ৮০% পর্যন্ত ডিসকাউন্ট! এসব মূল্যছাড়ে এবং অনলাইনে দারাজ থেকে কেনায় টাকা বাঁচানোর পাশাপাশি বাঁচানো যাবে সময়ও। এছাড়া, এই ক্যাম্পেইনের আরেকটা আকর্ষণীয় দিক হল, এখানে কোন ডেলিভারি চার্জ নেই।

ব্র্যান্ডেড পণ্য

দারাজের ‘গ্রোসারি মেলা’ ক্যাম্পেইনে থাকছে বডি শপ, বুলগারি, বুটস, ম্যাকের মতো বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সব পণ্য। তাই নিশ্চিন্তে দারাজ থেকে ভেজালহীন ব্র্যান্ডেড পণ্য কিনুন। ১০০% অথেনটিক পণ্যের জন্য দারাজ গ্রোসারি মেলা হতে পারে আপনার সেরা ভরসার সুপারমার্কেট।

সেরা ডিল

প্রত্যেক পরিবারেই মাসের বাজারের জন্য থাকে লম্বা তালিকা। গ্রোসারী থেকে শুরু করে চুলের যত্ন, প্রসাধনী, সুগন্ধি, ত্বকের যত্ন, বাচ্চাদের খেলনা, বাচ্চাদের যত্ন, বিভিন্ন মেক-আপ সহ কত প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রই না থাকে। তাই এখনই পরিবারের প্রয়োজনের তালিকা করে স্টক শেষ হয়ে যাবার আগে দারাজ থেকে খুঁজে নিন আপনার জন্য সেরা ডিলটি!

masher bazar of daraz bd

দারাজের যে কোন ক্যাম্পেইন নিউজ বা আপডেট পেতে সাবস্ক্রাইব করুন দারাজ নিউজলেটারে, ডাউনলোড করুন দারাজ অ্যাপ, চোখ রাখুন দারাজ ফেসবুক পেইজে, ফলো করুন টুইটার ও ইনস্টাগ্রাম।

এছাড়াও দেখুন:

দারাজ থেকে অনলাইন গ্রোসারি শপিং কেন করবেন?!

Image Map
daraz-grocery-mela-daraz.com.bd

দারাজ ১১.১১ গ্রোসারি মেলা: সেরা মানের সেরা বাজার

আধুনিক নগর জীবনের ব্যস্ত সময়ে প্রতিদিন বাজার করাটা অনেকের জন্যই ঝক্কির ব্যাপার। এছাড়া সবসময় সেরা মানের পণ্য পাওয়াটাও সহজ না। তাই সহজে ও নিশ্চিন্তে মাসের বাজারের সকল কেনাকাটা সারতে আপনার জন্য দারাজ নিয়ে এলো ‘দারাজ ১১.১১ গ্রোসারি মেলা‘। সেরা দাম, ভালো পণ্য, আকর্ষণীয় ডিসকাউন্ট ভাউচার ও দ্রুতগতির হোম ডেলিভারির মাধ্যমে অনলাইনে সেরা গ্রোসারি শপিং উপভোগ করতে ভিজিট করুন দারাজ গ্রোসারি মেলা’য়।

চলুন এক নজরে দেখে নেয়া যাক গ্রোসারি মেলা’র সেরা আকর্ষণগুলো-

অনলাইনে গ্রোসারি পণ্যের সেরা সংগ্রহ

দারাজ ১১.১১ গ্রোসারি মেলা’য় থাকবে দেশের সেরা ব্র্যান্ডগুলো থেকে ৪০০০ এর অধিক ডিল। দেশের সেরা এই গ্রোসারি সেল ক্যাম্পেইনের কো-স্পন্সর হিসেবে থাকছে ডেটল ও লাক্স। এছাড়া প্যারাস্যুট, নেসক্যাফে, এসিআই ফুড, ফগ ও হারপিক থাকছে দারাজ গ্রোসারি সেলের ব্র্যান্ড পার্টনার হিসেবে। তাই সেরা গ্রোসারি পণ্য কিনতে এখন আর সুপারস্টোরে যেতে হবে না- এখন দারাজেই মিলবে সকল ধরণের মাসের বাজার।

Animated GIF

গ্রোসারি শপিং এর সেরা সব ডিল

দৈনন্দিন কেনাকাটার জন্য দারাজ গ্রোসারি শপিং নিয়ে আসছে সেরা পণ্যের সেরা সব ডিল নিয়ে। সকল পণ্যে নিশ্চিত ছাড়, অসংখ্য ভাউচার, ফ্রি ডেলিভারি, ফ্রি গিফট, ১১ টাকার ডিলসহ বিভিন্ন সেরা ডিল উপভোগ করতে ভিজিট করুন গ্রোসারি মেলায় আর জিতে নিন আকর্ষণীয় সব অফার।

Hungry Kristen Bell GIF by Global TV

daraz 11.11 sale

 

অবিশ্বাস্য ক্যাশব্যাক অফার

এত এত সেরা ডিলের সাথে দারাজ গ্রোসারি মেলায় আরো থাকছে বিকাশ ও অন্যান্য পেমেন্ট গেটওয়ের ক্যাশব্যাক অফার যার মাধ্যমে আপনার পেমেন্টের একটা নির্দিষ্ট অংশ ফেরত পাওয়া যাবে। এর ফলে আপনি উপভোগ করতে পারবেন ইনস্ট্যান্ট ক্যাশব্যাক সুবিধা যা দারাজের গ্রাহকদের দেবে আরো কম খরচে মাসের বাজার করার সেরা সুযোগ।

Season 1 Valleyoftheboom GIF by National Geographic Channel

দ্রুততম সময়ে ফ্রি ডেলিভারি

‘দারাজ ১১.১১ গ্রোসারি মেলা’ থেকে পণ্য অর্ডার করলেই বাংলাদেশের যেকোন স্থানে আপনি উপভোগ করতে পারবেন দ্রুততম ডেলিভারি। এছাড়া সারাদেশের ৪৮টি পিকপয়েন্ট থেকে সংগ্রহ করতে পারবেন ফ্রি ডেলিভারি। তাই এখন থেকে সময়মতো ডেলিভারি নিয়ে আর দুশ্চিন্তা নয়- দারাজ গ্রোসারি মেলা পৌঁছে দেবে আপনার পছন্দের পণ্য দ্রুততম সময়ে।

Kate Mckinnon Grocery Shopping GIF by Saturday Night Live

তো আর দেরি কেন? এখনি বিকাশ বা নিজস্ব পেমেন্ট কার্ডে ব্যালেন্স ঢুকিয়ে প্রস্তুত থাকুন দেশের সবচেয়ে বড় গ্রোসারি শপিং ফেস্ট ‘দারাজ ১১.১১ গ্রোসারি মেলা’। এছাড়া দারাজ ১১.১১ সেল ক্যাম্পেইন থেকে বেছে নিতে পারেন বিশাল মূল্যছাড় ও ডিসকাউন্ট ভাউচারের মাধ্যমে সময়ের সেরা সব ডিল। এখন মাসের বাজারের কেনাকাটা জমে উঠবে আরো কম দামে, আরো সেরা মানের পণ্যের সাথে- বাংলাদেশের বৃহত্তম অনলাইন শপ দারাজে।

এছাড়া আরো দেখতে পারেন-
দারাজ ১১.১১ গ্রোসারি মেলা: সেরা ব্র্যান্ড, খাঁটি পণ্য

food_recipe_of_tomato_rice-daraz.com.bd

ফুড রেসিপি – টমেটো রাইসঃ মজাদার খাবারটি রান্না করবেন যেভাবে

প্রতিদিনের সাধারণ খাবারের মেন্যুতে বিরক্ত হয়ে যাচ্ছেন? নিত্যদিনের স্বাদে কিছুটা ভিন্নতা আনা দরকার? তাহলে অবসরে চোখের পলকে বানিয়ে ফেলতে পারেন মজাদার টমেটো রাইস। টমেটো রাইস শুধু খাবারের স্বাদে ভিন্নতা আনবে তা নয়, রান্নার প্রস্তুতিতে যোগ করবে এক নতুন অভিজ্ঞতা। তাই আর দেরি না করে খুব সহজ কৌশল অবলম্বন করে মজাদার টমেটো রাইস রান্নার সফল চেষ্টা করে ফেলতে পারেন বাসায় বসে।

ফুড রেসিপিঃ মুখরোচক টমেটো রাইস রান্নার সহজ উপায়

টমেটো রাইস রান্নার উপাদানঃ

  • চাল ১ কাপ
  • মটরশুঁটি ১/৪ কাপ
  • কর্ন ১/৪ কাপ
  • গাজর ১/৪ কাপ
  • মুরগির মাংস ১/৪ কাপ ডাইস করে কাটা
  • গরুর মাংস ১/৪ কাপ ডাইস করে কাটা
  • টমেটো ১টি
  • লবন ১ টেবিল চামচ
  • তেল ২ টেবিল চামচ
  • পানি ১ কাপ

টমেটো রাইস রন্ধন প্রণালীঃ

চিকেন কিউব ও বীফ কিউব গুলো লেবু দিয়ে ম্যারিনেড করে ৩০ মিনিটের জন্য রেখে দিন। এখন ম্যারিনেট করে রাখা চিকেন এবং বীফ কিউব সমূহ গ্যাস স্টোভ -এ রাখা পাত্রে ভাল ভাবে ভেজে নিন। এরপর রাইস কুকারে পানি ঝরানো চাল, গাজর, কর্ন, মিক্সড ভেজিটেবল দিয়ে কিছুক্ষন নাড়তে থাকুন। তারপর মিশ্রণটিতে ভেজে রাখা মাংস গুলো দিয়ে আরো কিছুক্ষন নাড়ুন। কিছু সময় পরে চাল সরিয়ে কুকারের ঠিক মাঝ বরাবর একটি আস্ত টমেটো বসিয়ে দিন। এরপর পানি দিয়ে ১০ মিনিটের জন্য ঢেকে দিন, পানি শুকিয়ে গেলে আরও কিছুক্ষণ নেড়ে উঠিয়ে ফেলুন। একটি পাত্রে পরিবেশন করুন মজাদার টমেটো রাইস। আর ফ্রিজে রেখে খেতে চাইলে পরে সুবিধামত মাইক্রোওয়েভ ওভেনে গরম করেও এই লোভণীয় খাবারটি উপভোগ করতে পারেন।

কেমন লাগলো স্বুসাদু টমেটো রাইস রান্নার সহজ রেসিপিটি? কমেন্ট করে জানিয়ে রাখতে পারেন। নতুন কোন ফুড রেসিপির আইডিয়া থাকলে আমাদের সাথে শেয়ার করতে পারেন।

আরও পড়ুন,

ফুড রেসিপি – মেক্সিকান রাইসঃ ভিন্ন স্বাদের খাবার রান্নার সহজ সমাধান

pakora_food_recipe-daraz.com.bd

ফুড রেসিপিঃ কুমড়া পাকোড়া – ঝটপট বানিয়ে ফেলুন ঘরে বসে

নাস্তায় নতুনত্ব আনতে বাইরের খাবারের উপর ভরসা আর কত দিন? তার উপর তেল সহ অন্যান্য রান্না উপকরণের ব্যবহার নিয়ে তো দুশ্চিন্তা রয়েই যায়। এত কিছু ভাবার পর আপনার মাথায় মনের অজান্তেই চিন্তা চলে আসতে পারে, পছন্দের সব ধরণের মুখরোচক খাবার যদি তৈরী করা যেত বাসায়! হ্যা, এখন ঘরে বসেই মজাদার কুমড়া পাকোড়া কোন প্রকার ঝামেলা ছাড়াই বানিয়ে ফেলা সম্ভব। এজন্য দেখে নিতে পারেন আমাদের সহজ কুমড়া পাকোড়া রেসিপিটি।

ফুড রেসিপিঃ কুমড়া পাকোড়া রেসিপি

প্রয়োজনীয় উপকরণ সমূহঃ

  • পিঁয়াজ কুঁচি ১টি
  • মিষ্টি কুমড়া ১ কাপ (ঝাঁঝরি করা)
  • লবন ১ চা চামচ
  • গোলমরিচ/হেলিপিনো কুঁচি ১টি
  • জিরা ১ চা চামচ
  • কালো জিরা ১ চা চামচ
  • আদা কুঁচি ১ চা চামচ
  • হলুদ গুঁড়া ১/২ চা চামচ
  • লবন ১ চা চামচ
  • বেসন ৩/৪ কাপ
  • চালের গুঁড়া ১ টেবিল চামচ
  • রোজমেরি/ ধনে পাতা ২ টেবিল চামচ
  • চাট মসলা

প্রস্তুত প্রনালীঃ

একটি বড় মিক্সিং বোলে পিঁয়াজকুচি, ঝাঁঝরি করা কুমড়া, লবন দিয়ে ভালো করে মাখিয়ে নিন। এতে জিরা, কালোজিরা, আদা কুঁচি, হলুদ গুঁড়া মিশিয়ে নিন। এরপর মিশ্রণটিতে বেসন, চালের গুঁড়া ও ১/৩ কাপ পানি মিশিয়ে নিন। ঝামেলা এড়াতে ব্লেন্ডার মেশিন অথবা মিক্সার এর সাহায্য নিতে পারেন।

মিশ্রনের সাথে রোজমেরি পাউডার মিশিয়ে নিন। একটি প্যানে তেল গরম করুন। গরম তেলে মিশ্রণটি একটু একটু নিয়ে ভেজে নিন। ব্যস তৈরী হয়ে গেলো মজাদার কুমড়া পাকোড়া। যদি পাকোড়া ফ্রিজ -এ রেখে খেতে চান, তবে সাথে সাথেই না খেয়ে খাবারটি স্বাভাবিক তাপমাত্রায় নিয়ে খাওয়াটাই স্বাস্থ্যের জন্য ভাল বলে বিবেচিত।

আরও দেখতে পারেন,

ফুড রেসিপিঃ প্রন রিসোট্টো – ঘরোয়া পদ্ধতিতে সহজে রান্না করবেন যেভাবে

sehri_for_ramadan-daraz.com.bd

তীব্র গরমে সেহেরীর খাবার তালিকা যেমন হওয়া উচিৎ

বছর ঘুরে আবারও দরজায় কড়া নাড়তে শুরু করেছে পবিত্র মাহে রমজান। এসময় ভোর রাতের সেহেরী থেকে ইফতারের মাধ্যমে রোজা ভাঙ্গার আগ পর্যন্ত দীর্ঘ সময় না খেয়ে থাকতে হয়। তাই সেহেরী হতে হবে পরিকল্পিত ও স্বাস্থ্যকর যেন সারাদিন রোজা রাখার শক্তি পাওয়া যায়। বিশেষ করে এবারের কাঠফাটা গরমে আলাদাভাবে লক্ষ্য রাখতে হবে সেহেরীর খাবার তালিকার দিকে- নইলে অসুস্থ হয়ে পড়াসহ দীর্ঘমেয়াদী স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দেওয়াটা মোটেও বিচিত্র নয়। অনেকেই আবার সারাদিন না খেয়ে থাকতে হবে বলে সেহেরীতে যত বেশি সম্ভব খেয়ে নেওয়া যায়- এমন পন্থা অবলম্বন করেন যা মোটেও স্বাস্থসম্মত নয়। বরং সেহেরীর খাবার এমন হওয়া দরকার যেন তা সারাদিনের দেহের পুষ্টির চাহিদা পূরণ করতে পারে, আবার এত অতিরিক্ত খাওয়াটাও উচিৎ না, যা আপনাকে অসুস্থ করে ফেলে।

সেহেরীতে সুষম ও স্বাস্থ্যকর খাবার তালিকা তৈরীতে যেসব বিষয়ের প্রতি খেয়াল রাখা দরকার

সেহেরিতে যেসব খাবার খাওয়া যেতে পারে-

ভাত – রুটি

সেহেরি হচ্ছে রমজানের সবচেয়ে প্রয়োজনীয় খাবার। এতে এমন ধরণের খাবার খাওয়া উচিৎ, যা হজম হতে সময় লাগে এবং দীর্ঘক্ষণ কর্মশক্তি ধরে রাখতে সাহায্য করে। একারণে সেহেরির খাদ্য তালিকায় শর্করা বা কার্বোহাইড্রেট সম্পন্ন খাবার রাখা উচিৎ। কারণ কমপ্লেক্স কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার ধীরে ধীরে রক্তে গ্লুকোজ দেয় এবং খাদ্যে আঁশের চাহিদা জোগায়। ঢেঁকিছাঁটা চাল, লাল আটার রুটি, আলু, চিড়া, ওটস, সিরিয়াল, বার্লি -এই খাবারগুলোতে যথেষ্ট পরিমাণ কার্বোহাইড্রেট থাকে। এছাড়া ধীরগতিতে হজম হয় এবং হজম হতে প্রায় ৮ ঘণ্টা লাগে বলে এসব খাবার খেলে দিনের বেলায় কম ক্ষুধা লাগে। তাই সেহেরীর খাদ্য তালিকার একটা বড় অংশ জুড়ে এসব খাবার রাখলে তা আপনাকে রোজার দীর্ঘ উপবাসের সময়ও সারাদিন সুস্থ ও কর্মক্ষম রাখবে।

প্রোটিন জাতীয় খাবার

সেহরিতে আমিষ বা প্রোটিন জাতীয় খাবার থাকলে তা আপনার দেহের প্রয়োজনীয় পুষ্টির চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি সারাদিন আপনাকে শক্তি যোগাবে। মাছ, মাংস, দুধ, দুধজাত খাবার, ডিম, ডাল প্রভৃতি খাবার প্রোটিনের ভালো উৎস। এছাড়া এসব খাবারে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, জিংক, আয়রন প্রভৃতি পুষ্টি উপাদানও প্রচুর পরিমাণে থাকে, যা আপনার হাড়ের সুস্থতার জন্য জরুরি। বিশেষ ভাবে সেহেরীতে দুধ আপনার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ খাবার হতে পারে। লো ফ্যাট দুধ রক্তের কোলেস্টেরল বজায় রাখতে সাহায্য করে। এছাড়া দুধজাতীয় বিভিন্ন খাবার যেমন দই, ছানা প্রভৃতি কিংবা কলা ও আম সহ দুধভাত রোজার সময়ে আপনার শরীরের প্রয়োজনীয় পুষ্টি যোগাবে। মাছ বা মাংসের বদলে সেহেরীর খাবারে একটি ডিম থাকলেও তা আপনাকে প্রয়োজনীয় শক্তির চাহিদা পূরণ করতে পারে।

তাজা সবজি

ভিটামিন শরীরের জন্য খুবই দরকারী একটি পুষ্টি উপাদান। তাজা শাকসবজি দেহের প্রয়োজনীয় ভিটামিনের একটি নির্ভরযোগ্য উৎস। তাই সেহরিতে প্রতিদিন সবজি খাওয়া উচিৎ। তবে রাতের খাবারে অতিরিক্ত আঁশযুক্ত সবজি খাওয়া ঠিক না। কারণ অতিরিক্ত ফাইবার সমৃদ্ধ সবজি হজমের ঝামেলা করতে পারে। তার বদলে সেহেরীতে মাঝারি আঁশের সবজি যেমন- ঝিঙে, চিচিংগা, লাউ, পেঁপে, চালকুমড়া, গাজর প্রভৃতি খাওয়াটা বেশি স্বাস্থ্যসম্মত।

ফলমূল

সেহেরীর খাবারের পর ফল খেলে তা দিনের বাকী সময়টায় আপনার শরীরের প্রয়োজনীয় পানির চাহিদা পূরণ করতে সাহায্য করবে। তবে এক্ষেত্রে কিছু বিষয় খেয়াল রাখা উচিৎ। ভোররাতে টক জাতীয় ফল না খাওয়াই ভালো। এর ফলে অ্যাসিডিটির ঝুঁকি বাড়ে। মাঝারি আঁশযুক্ত ও নরম পাকা ফল এক্ষেত্রে বেশি উপকারী। পেঁপে, কলা, আম ইত্যাদি অথবা বিভিন্ন মৌসুমী ফলের ও দুধের তৈরি কাস্টার্ড খাওয়া যেতে পারে। এইসব সুস্বাদু ফল ও ফলজাত খাবার দেহের পুষ্টি উপাদান ও পানির চাহিদা পূরণের পাশাপাশি দীর্ঘসময় শরীরের শক্তি যোগায়।

তরল জাতীয় খাবার

রোজা রাখার অন্যতম স্বাস্থ্যজনিত সমস্যা হচ্ছে শরীরের পানি ঘাটতি। তাই যেসব খাবার পানিশূণ্যতা দূর করে, সেহেরির খাদ্য তালিকায় সেসব খাবার যোগ করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে ডাবের পানি, শসা, আনারস, টমেটো, কমলা ও তরমুজ ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য হতে পারে। এছাড়া সেহেরিতে পর্যাপ্ত পরিমান পানি পান করা উচিৎ যেন সারাদিনের পানি ঘাটতি পূরণ হয়। তবে তাই বলে গলা পর্যন্ত পানি পান করা উচিৎ না। বরং কিছুটা ফাঁকা রাখুন। খুব ঠান্ডা এবং খুব গরম পানি পান করা উচিৎ না। এ ছাড়া তরল খাবার হিসেবে দুধ, পাতলা সাগু, সাবু বা বার্লি, সুজি, স্যুপ, আঙ্গুরের রস ইত্যাদি খাওয়া যেতে পারে সেহেরীতে। জুসের জন্য বাইরে থেকে কেনা জুস না খেয়ে বাড়িতে ব্লেন্ডার মেশিন দিয়ে ফলের রস কিংবা জুস বানিয়ে নেয়া উত্তম।

সেহেরীতে যেসব খাবার এড়িয়ে চলাই ভাল-

সেহেরির সময় বেশি তৈলাক্ত, মসলাদার এবং ঝাল খাবার খাওয়া উচিৎ না। সেক্ষেত্রে সেহেরির খাদ্য তালিকা থেকে বিরিয়ানী, পোলাও, তেহারি প্রভৃতি ভারি ধরণের খাবার বাদ দিতে পারেন। কারণ সেহেরীতে এসব খাবার খেলে বদহজম, বুক জ্বালাপোড়া করা এবং পেট ফাঁপার সমস্যা হতে পারে। অনেকেরই সেহরিতে চা-কফি খাওয়ার অভ্যাস আছে। কিন্তু এসব পানীয়তে ক্যাফেইন থাকে, যা মূত্রের পরিমাণ বাড়ায়, ফলে শরীরের পানির পরিমাণ কমে যায় এবং খুব তাড়াতাড়ি তৃষ্ণা পায়। তাই সেহেরিতে এসব খাবার এড়িয়ে চলা উচিৎ। পানিশূণ্যতা বাড়ায় বলে সেহেরির সময় অতিরিক্ত লবণাক্ত খাবার খাওয়া উচিৎ নয়।

প্রচন্ড গরমে রোজা রেখে সুস্থ থাকতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই সেহেরির খাবারের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। কারণ সঠিক খাদ্যাভাস না মেনে রোজা রাখলে খুব সহজেই অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন। বিশেষ করে দেহে পানিশূন্যতা যাতে না হয় সেজন্য বেশি খেয়াল রাখতে হবে। আর অবশ্যই রোজা রাখতে চাইলে সেহেরি খাওয়ার ব্যাপারে কোনো ছাড় দেবেন না। তাহলে আশা করি এই গরমেও রোজা রাখতে খুব বেশি সমস্যায় পড়বেন না।

আরো দেখুনঃ ইফতার খাবার তালিকা

iftar_for_ramadan-daraz.com.bd

পবিত্র মাহে রমজানে সুস্থ থাকতে চাই স্বাস্থ্যকর ইফতার

বাইরে এখন গ্রীষ্মের কাঠফাটা রোদ। এর মধ্যেই বছর ঘুরে হাজির হয়েছে পবিত্র মাহে রমজান। তাই বলে কি রোজা রাখবেন না? এই গরমে সারাদিন না খেয়ে থাকাটা স্বাস্থ্যের জন্য বিরাট ঝুঁকি হতে পারে যদি না ইফতারের সময় টেবিলে থাকে স্বাস্থ্যসম্মত খাবার। ইফতারে পুষ্টিকর খাবার মেনু শুধু আপনার সারাদিনের পুষ্টির চাহিদাই পূরণ করবে না, সাথে যোগাবে সুস্থ শরীরে পরের দিন রোজা রাখার শক্তি। তাই শুধু ইফতার ও সেহরীর সময়সূচী ২০১৯ জানলেই হবে না, সেই সাথে জানতে হবে কিভাবে গরমের মধ্যেও ইফতারের সঠিক নিয়ম মেনে সুস্থ থাকতে হয়।

রমজান মানেই টেবিলভর্তি বিভিন্ন মজাদার ইফতার আয়োজন। ঘরে ঘরে গৃহিণীদেরও ইচ্ছে থাকে ইফতারের আয়োজনটা হোক কিছুটা আলাদা। তাই রোজার মাস এলেই চারিদিকে দেখা যায় হরেক রকমের ইফতার আইটেম এর রেসিপি। কিন্তু প্রায়ই আমরা ইফতারের গুরুত্বকে অবহেলা করে অস্বাস্থ্যকর ইফতার রেসিপিতে ভর্তি করে ফেলি ইফতারি খাবার টেবিল- যা একেবারেই অনুচিত। এছাড়া আমাদের দেশে সারাদিন না খেয়ে থেকে ইফতারে তেলে ভাজা ও চর্বি সমৃদ্ধ খাবারের অভ্যাস দেখা যায়, যা তৈরী করতে পারে মারাত্নক স্বাস্থ্য ঝুঁকি।

এই গরমে ইফতারের খাবার উপাদান হিসেবে যেসব আইটেম থাকা দরকার প্রতিদিনকার ইফতারি আয়োজনে

পুষ্টিকর পানীয়

রমজান এলেই বিভিন্ন আকর্ষণীয় ইফতার রেসিপি দেখা যায় টিভিতে, পত্রিকায়, সবখানে। কিন্তু সেই তুলনায় পুষ্টিকর তরল খাবার নিয়ে সচেতনতা দেখা যায় না। অথচ গরমে সারাদিন রোজা রাখলে দেহে দেখা দেয় মারাত্নক পানিশূন্যতা। শরীরের পানির এই ঘাটতি পূরণ করতে ইফতারে বেশি করে পুষ্টিকর পানীয় রাখতে হবে। ইফতারে পানীয় হিসেবে রুহ আফজা, ট্যাং ও লেবুর সরবত জনপ্রিয়। কিন্তু দেহের পুষ্টির চাহিদা পূরণ করতে ইফতার টেবিলে রাখতে পারেন বিভিন্ন তাজা ফলের জুস, লেবু পানি, কচি ডাবের পানি, আখের রস ও গুড়ের শরবত প্রভৃতি। এছাড়া শরবত তৈরিতে ব্রাউন সুগার, তাল মিছরি, গুড় ও মধুর ব্যবহার আপনার পানির চাহিদার পাশাপাশি পুষ্টির চাহিদাও পূরণ করবে শতভাগ।

মৌসুমী ফল

বর্তমানে বাজারে পাওয়া যাচ্ছে আম, লিচু, জাম, কাঁঠাল, আনারস সহ গ্রীষ্মের বিভিন্ন মৌসুমী ফল। আমাদের দেশে ইফতার ফল দিয়ে করার খুব একটা প্রচলন নেই। যদিও পৃথিবীর অনেক দেশেই ইফতারে ফলাহার করার রীতি রয়েছে। এইসব মৌসুমি ফল একইসাথে সুস্বাদু, পুষ্টিকর ও পানিশূন্যতা দূর করতে অতুলনীয়। কারণ ফলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পানি, ভিটামিন ও মিনারেল, যা আপনাকে এই গরমে রাখবে সুস্থ। এছাড়া ফলের তৈরী বিভিন্ন খাবার ও মিষ্টিজাতীয় ডেজার্ট রাখতে পারেন ইফতারের উল্লেখযোগ্য খাবার হিসেবে।

কাঁচা ছোলা

বাংলাদেশে ইফতারে ছোলা একটি জনপ্রিয় খাবার। ছোলায় প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে। তবে অতিরিক্ত তেল ও মসলায় ভুনা ছোলা অনেক সময় উপকারের থেকে ক্ষতিই করে বেশি। তারচেয়ে বেশি উপকার পেতে পারেন কাঁচা ছোলায়। ছোলা ভাল করে ধুয়ে সারারাত ভিজিয়ে ইফতারের আগে আগে পেঁয়াজ, রসূন, মরিচ, আদা ও খাঁটি সরিষার তেল দিয়ে ভালো করে মাখিয়ে পরিবেশন করতে পারেন। এছাড়া সিদ্ধ ছোলার সাথে পেঁয়াজ, মরিচ, শশা, টমেটো ইত্যাদি মিশিয়ে খেলেও অনেক খাদ্য আঁশ ও প্রোটিন পাওয়া যায়, যা আপনার ক্লান্ত শরীরে যোগাবে প্রয়োজনীয় প্রাণ শক্তি।

মিষ্টি জাতীয় খাবার

ইফতারে চিড়া, খেজুর ও আখের গুড়, পাটালি, জিলাপি ও বন্দিয়া জাতীয় খাবারের প্রচলন রয়েছে আমাদের দেশে। তবে ইফতারিতে একটি আদর্শ খাবার হতে পারে দই-চিড়া ও দুধ-চিড়া অথবা কলা-চিড়া ও আম-চিড়া। এইসব খাবার পেট ঠান্ডা রাখে ফলে গ্যাসের সমস্যা হওয়ার সম্ভবনা থাকে না। তাই সেহরি ও ইফতারের খাবার হিসেবে এই ধরণের খাবার বেশি পরিমাণে রাখতে পারেন মেনুতে। এছাড়া পরিমিত পরিমাণে মিষ্টান্নের সাথে দুধের তৈরি মিষ্টি জাতীয় খাবার যেমন ফালুদা, কাস্টার্ড, পুডিং, ফিরনি বা পায়েস ও সেমাই ইত্যাদি খাওয়া যেতে পারে। অন্যদিকে চা-কফি কিংবা পেট গরম করে এমন খাবারের পরিমাণ যত কম খাওয়া যায় ততই মঙ্গল।

শাকসবজি

উচ্চ ভিটামিন সমৃদ্ধ শাকসবজি আপনাকে প্রয়োজনীয় পুষ্টি যোগায়, যা আপনার শরীরের জন্য অতি দরকারি। তাই মাঝে মাঝে চকবাজারের ইফতার খেতে পারেন, কিন্তু খেয়াল রাখবেন অধিকাংশ সময়ই যেন ইফতার আলুর চপ, অতিরিক্ত তেলে ভাজা খাবার, হালিম, বিরিয়ানি প্রভৃতি কম থাকে। তারচেয়ে সবজি পাকোড়া, সবজীর স্যুপ, শাকের বড়া, বেগুনী ও রসূনের চপ প্রভৃতি খাবার বেশি উপকারি হতে পারে।

– এছাড়া ইফতারের ক্ষেত্রে যেসব বিষয় মনে রাখতে পারেন –

  • মাগরেবের আযান পড়ার সাথে সাথে খুব তাড়াহুড়া করে অধিক পরিমাণে ইফতার করা উচিৎ নয়। কারণ সারাদিন না খেয়ে থাকার পর একসাথে অনেক বেশি খাবার আপনার জন্য অপকারী হতে পারে। ধীরে ধীরে সময় নিয়ে ইফতার করুন।
  • অনেকেই ডায়েট ইফতার করেন যেটা একেবারেই উচিৎ না। সারাদিন না খেয়ে থেকে এমনিতেই আপনার শরীর দুর্বল থাকে। তাই ইফতারে ডায়েট না করে সুষম খাবার গ্রহণের প্রতি মনযোগী হওয়া উচিৎ।
  • চেষ্টা করবেন ইফতারে যেন সব ধরণের খাদ্য উপাদান থাকে।
  • ইফতারে অতিরিক্ত খাবার খাওয়া ঠিক না। তারচেয়ে অল্প বিরতিতে কিছুক্ষণ পর পর খাবার গ্রহণ করতে পারেন।
  • ইফতার করার পরপরই ঘুমিয়ে পড়বেন না। কিছুটা হাঁটাচলা করুন।
  • প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন, ইদানিং গরম বেশি বলে আগেই পানি ফ্রিজ এ রাখতে পারেন কিংবা ফ্রিজের বরফ ব্যবহার করা যেতে পারে। মনে রাখবেন রোজা রাখার সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে পানিশুন্যতা, যা আপনাকে হিটস্ট্রোকের দিকে ঠেলে দিতে পারে। তবে শুরুতেই একসাথে অনেক পানি পান করা অনুচিৎ।

আরো দেখুনঃ সেহেরীর খাবার তালিকা

mexican-rice-recipe-Daraz.com.bd

ফুড রেসিপি – মেক্সিকান রাইসঃ ভিন্ন স্বাদের খাবার রান্নার সহজ সমাধান

প্রাত্যহিক ব্যস্ততম দিনে পছন্দের খাবার রান্নার জন্য এক মূহুর্ত অবসর বের করা অনেকের জন্যই কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। অনেকে অবসর বের করতে পারলেও কাঙ্ক্ষিত খাবারের ঝামেলাহীন ফুড রেসিপি খুঁজে থাকেন। সেসব রাঁধুনির জন্য দারাজ ফুডের মেক্সিকান রাইস রেসিপি হতে পারে স্বল্প সময়ে মজাদার খাবার রান্নার সহজ সমাধান।

ফুড রেসিপিঃ ভিন্ন স্বাদের মেক্সিকান রাইস রান্নার সহজ উপায় একনজরে দেখে নিন

দরকারি উপকরণ সমূহঃ

  • ২ কাপ মোজাম্মেল স্পেশাল নাজিরশাইল চাল (সিদ্ধ করে পানি ঝরানো)
  • ২ কাপ সাদা রাজমা ডাল
  • ২ কাপ রাজমা ডাল
  • ২ কাপ ভুট্টা (সিদ্ধ করে পানি ঝরানো)
  • ১টি ছোট পেঁয়াজ কুঁচি
  • কাঁচা মরিচ কুঁচি
  • ১টি ক্যাপসিকাম (ডাইস করে কাটা)
  • ২টি পাপরিকা (ডাইস করে কাটা)
  • ১টি লেবুর রস এবং খোসাকুঁচি
  • ১/৪ কাপ ধনেপাতা কুঁচি
  • ১ চা চামচ রসুন কুঁচি
  • ১ এবং ১/২ চা চামচ জিরা গুঁড়া
  • লবন পরিমাণমতো

রন্ধন প্রণালীঃ

একটি বড় বোলে সিদ্ধ নাজিরশাইল চালের ভাত, রাজমা ডাল, সাদা রাজমা ডাল, ভুট্টা, পিঁয়াজ কুঁচি, কাঁচা মরিচ কুঁচি, ক্যাপসিকাম, পাপরিকা, লেবুর রস, লেবু খোঁসাকুচি, ধনে পাতা কুঁচি, রসুন কুঁচি, জিরা গুঁড়া দিয়ে ভালো করে টস করে নিতে হবে। ১ ঘন্টা ফ্রিজে রেখে পরিবেশন করুন মজাদার মেক্সিকান রাইস।

চমৎকার এই দারাজ ফুড রেসিপি ভাল লেগে থাকলে ব্লগ পোস্টটি শেয়ার করতে পারেন এবং কমেন্ট বক্সে আপনার মূল্যবান মতামত জানিয়ে দিতে পারেন।

আরও দেখতে পারেন,

ফুড রেসিপি – ক্যারিবিয়ান রাইসঃ সহজ কৌশলে রান্না করবেন যেভাবে

css.php