ই-সিম কী এবং বাংলাদেশে আপনার বর্তমান সিমকে কীভাবে ই-সিমে স্থানান্তর করবেন? 0 3710

Last updated on ডিসেম্বর 21st, 2023 at 10:48 পূর্বাহ্ন

প্রযুক্তি উল্লেখযোগ্যভাবে বিকশিত হচ্ছে এবং একটি দুর্দান্ত অভিজ্ঞতা প্রদানের জন্য আরও বেশি সুবিধাজনক উদ্ভাবন প্রবর্তন করছে। ই-সিম হল অন্যতম উল্লেখযোগ্য মোবাইল প্রযুক্তি যা মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের একটি বিশাল সুবিধা দেয়।

বাংলাদেশে, ই-সিম ১ মার্চ, ২০২২-এ মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের জন্য দুর্দান্ত সুবিধা নিয়ে আসে। এখন, আপনি আপনার গ্রামীণফোনের বর্তমান সিমটি ই-সিমে স্থানান্তর করতে পারেন এবং এই সিমটি কিছু নির্দিষ্ট ফোন মডেলের জন্য উপলব্ধ।

যদিও এখন ই-সিম কী তা একটি সাধারণ প্রশ্ন, অনেক স্মার্টফোন ব্যবহারকারী ইতিমধ্যেই ই-সিমে স্থানান্তরিত হয়েছে। আপনি কি আপনার ফোনে একটি ই-সিম রাখতে চান?

আসুন ই-সিম এর ধারণা, ই-সিম এর মাইগ্রেশন প্রক্রিয়া, ই-সিম এর খরচ এবং ই-সিম এর সুবিধাগুলি জেনে নেই।

ই-সিম কি?

ই-সিম বলতে এমবেডেড সিম বোঝায়। এই ধরনের সিম আপনাকে আলাদা কোনও সিম ছাড়াই আপনার নির্বাচিত অপারেটরের সাথে সংযোগ করতে দিবে৷ এই সিমের সাহায্যে একটি ফিজিক্যাল সিম ঢোকানোর পরিবর্তে একটি স্মার্টফোনে ইলেকট্রনিকভাবে প্রোগ্রাম করা যায়।

ই-সিম এর সুবিধা কি কি?

ই-সিম ফিজিক্যাল সিমের ব্যবহার কমিয়ে দেয় যাতে আপনি আরও সুবিধা সহ ভার্চুয়াল সিম ব্যবহার করতে পারেন। বাংলাদেশে ই-সিম চালু আমাদের দেশের পরিবেশ রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

এটি ফোন ব্যবহারকারীদের বাংলাদেশে থাকলেও একটি আন্তর্জাতিক অপারেটর ব্যাবহার করতে দিবে। চলুন দেখে নেই ই-সিম ব্যবহারের সুবিধাগুলো।

ইনস্টল করা সহজ

ই-সিম ইনস্টল করা সহজ এবং আপনি বর্তমানে যে সিমটি ব্যবহার করছেন তার চেয়ে এটি আরও সুবিধাজনক।

নিরাপদ

ই-সিম বর্তমান ব্যবহৃত সিমের চেয়েও নিরাপদ। কারণ এখন আপনার সিম কার্ড হারানো নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার দরকার নেই।

পরিবেশ বান্ধব

হয়তো আপনি বর্তমানে বাংলাদেশে একটি ফিজিক্যাল সিম ব্যবহার করছেন যা প্লাস্টিক দিয়ে তৈরি। এই উপাদান পরিবেশ বান্ধব নয়, তাই না? আপনার কাছে ই-সিম থাকলে, আপনাকে আলাদা সিম কার্ড ব্যবহার করতে হবে না।

কে বা কারা এই মুহূর্তে ই-সিম ব্যবহার করতে পারবে?

নির্দিষ্ট কিছু প্যাকেজ এবং স্মার্টফোনের কিছু নির্দিষ্ট মডেল ই-সিম এ অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আসুন নীচের তালিকাটি একবার দেখে নেওয়া যাক।

ই-সিম প্রাপ্ত পণ্য 

  • প্রিপেইড (নিশ্চিন্ত)
  • পোস্টপেইড (মাই প্লান)
  • মাইগ্রেশন

প্রিপেইড এবং পোস্টপেইড সহ বিজনেস সলিউশন গ্রাহকরা ই-সিম-এর জন্য যোগ্য নয়।

বাংলাদেশে কোন ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন ই-সিম সমর্থন করে?

আইফোন ডিভাইস

আইফোন এক্স আর, আইফোন ১১ প্রো, আইফোন ১২, এবং ১৩ এ বিল্ট-ইন ই-সিম সমর্থন রয়েছে।

স্যামসাং ডিভাইস

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ২০, এস ২১, নোট ২০, এবং গ্যালাক্সি ফোল্ড এর সংস্করণ।

গুগল পিক্সেল ডিভাইস

গুগল পিক্সেল ৩, ৩-এ, ৪, ৪-এ, ৫, ৫-এ, এবং ৬-প্রো ই-সিম সমর্থন করে।

গ্রামীণফোন ই-সিম কোথায় পাবেন?

বর্তমানে, গ্রামীণফোন নিম্নোক্ত ডেলিভারি অবস্থানে কাঙ্খিত ব্যবহারকারীদের জন্য ই-সিম প্রদান করে।

  • জিপি হাউস এক্সপেরিয়েন্স সেন্টার
  • জিপিসি লাউঞ্জ গুলশান
  • সিমান্তো স্কয়ার জিপিসি, ধানমন্ডি
  • জিপিসি লাউঞ্জ জিইসি- সিটিজি
  • বসুন্ধরা সিটি জিপিসি
  • জিপি অনলাইন শপ
  • ফার্মগেট জিপিসি
  • সিলেট করিমুল্লাহ মার্কেট জিপিসি
  • ঢাকা বিমানবন্দর জিপিসি
  • উত্তরা জসিমউদ্দিন রোড জিপিসি
  • মতিঝিল জিপিসি

কিভাবে ই-সিম কিনবেন বা সক্রিয় করবেন?

ই-সিম সক্রিয় করা খুবই সহজ। আপনাকে একটি ই-সিম ডেলিভারি লোকেশনে যেতে হবে যা উপরের বিভাগে উল্লেখ করা আছে। এবং আপনার ই-সিম সক্রিয় করতে নীচের পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন৷

  • প্রথম, আপনার পরিকল্পনা চয়ন করুন
  • আপনার মোবাইল নম্বর নির্বাচন করুন
  • বায়োমেট্রিক যাচাই প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করুন
  • আপনার ফোনের ইন্টারনেট সংযোগ চালু করুন
  • সিম কিটের কিউ আর কোড স্ক্যান করুন
  • মোবাইলে আসা স্টেপগুলো পুরন করুন।

এছাড়াও আপনি আপনার আরও প্রশ্নের ব্যাখ্যার জন্য গ্রামীণফোন অনলাইন গ্রাহক পরিষেবার সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

কিভাবে আপনার বর্তমান সিম থেকে ই-সিম এ মাইগ্রেট করবেন?

একটি ফিজিক্যাল সিম থেকে ই-সিম এ স্থানান্তর করা সহজ এবং সুলভ। শুধু নিচের ধাপগুলো দেখে নিন।

ই-সিম এর জন্য যোগ্য হ্যান্ডসেট নিয়ে আপনাকে আপনার নিকটস্থ গ্রামীনফোন সেন্টার বা জিপি অনলাইন শপে যেতে হবে।

  • ই-সিম মাইগ্রেশনের জন্য অনুরোধ
  • বায়োমেট্রিক যাচাইকরণ প্রক্রিয়া শেষ করুন
  • আপনার মোবাইলে ডাটা কানেকশন চালু করুন
  • সিম কিটে পাওয়া কিউ আর কোডটি স্ক্যান করুন
  • আপনার ডিভাইস যে পদক্ষেপগুলি দেখায় সেগুলিকে অনুমতি দিন৷

বাংলাদেশে একটি ই-সিম কিনতে বা মাইগ্রেট করতে আপনার কত খরচ হবে?

একটি ই-সিম কেনার খরচ বেশি নয়। এখন আপনি শুধুমাত্র ২০০ টাকা খরচে একটি ই-সিম পেতে পারেন। আপনি যদি ই-সিম-এ স্থানান্তরিত করতে চান, তাহলে আপনার শুধুমাত্র ৯৯ টাকা লাগবে। কিন্তু জিপি স্টার ব্যবহারকারীদের জন্য মাইগ্রেশন সম্পূর্ণ বিনামূল্যে।

আরও একটি মজার বিষয় হল যে  শুধুমাত্র ঢাকা মেট্রোপলিটন শহরের জন্য ই-সিম এর অনলাইন ডেলিভারি পরিষেবা প্রদান করে। এই ক্ষেত্রে, আপনি আপনার ই-সিম-এর জন্য একটি অর্ডার দিতে পারেন। 

পরিশেষে

এখন আপনি আপনার জন্য একটি ই-সিম নিতে সক্ষম হয়েছেন কারণ আপনি ইতিমধ্যেই ই-সিম নিবন্ধন এবং বাংলাদেশের পছন্দসই স্থান থেকে ই-সিম স্থানান্তর করার প্রক্রিয়া সম্পর্কে নিবন্ধটি দেখেছেন।

কেনাকাটা করতে যাওয়ার আগে নিশ্চিত করুন যে আপনার প্যাকেজ এবং মোবাইল ডিভাইস ই-সিম এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

ইংরেজিতে পড়ুনঃ Benefits of eSIM and Where and How to Migrate eSIM in BD.

Spread the love
Previous ArticleNext Article

মন্তব্য করুন

দারাজ সেলার সেন্টার এর মাধ্যমে কীভাবে অনলাইনে টাকা আয় করবেন? 0 422

আপনি কি অনলাইনে টাকা আয় করার উপায় খুজছেন? দারাজ বাংলাদেশ নিয়ে এলো দারাজ সেলার সেন্টার যেখান থেকে আপনি খুব সহজেই আপনার পণ্য বিক্রয় করতে পারবেন বাংলাদেশের যেকোনো স্থানে এবং ঘরে বসেই আয় করতে পারবেন। 

কিন্তু কিভাবে? চলুন দেখে নেওয়া যাক কিভাবে অনলাইনে দারাজ সেলার সেন্টার থেকে টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

দারাজ বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ অনলাইন মার্কেটপ্লেস হিসেবে বিক্রেতাদের বিশেষ সুযোগ সুবিধা প্রদান করে থাকে। সফল ভাবে ব্যবসা বৃদ্ধির জন্য অনলাইন প্ল্যাটফর্মে ব্যবসায় প্রক্রিয়া বোঝা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এখানে আমরা, কীভাবে দারাজ সেলার সেন্টার পরিচালনা করতে হয়, প্ল্যাটফর্মের সঠিক ব্যবহার এবং ব্যবসা বৃদ্ধির জন্য বিক্রয় কৌশল সম্পর্কে একটি বিস্তৃত নির্দেশিকা প্রদান করব।

দারাজে সেল করুন এবং টাকা আয় করুন
দারাজ সেলার সেন্টার এর মাধ্যমে কীভাবে অনলাইনে টাকা আয় করবেন? 10

কেন আপনি দারাজ বাংলাদেশে বিক্রেতা হওয়ার কথা বিবেচনা করবেন?

উত্তরটি একদম সহজ: এটি আপনাকে বাংলাদেশের সবথেকে বড় ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম এর মাধ্যমে সারা দেশে লক্ষ লক্ষ গ্রাহকদের কাছে আপনার পণ্য পৌঁছে দেওয়ার সুযোগ করে দিবে। 

এছাড়াও আপনি এই অনলাইন মার্কেটপ্লেসের মাধ্যমে সঠিক কৌশল এবং সুযোগ সুবিধা ব্যবহার করে একটি শক্তিশালী অনলাইন ব্যবসায়িক অবস্থান প্রতিষ্ঠা করতে পারবেন।

দারাজ সেলার সেন্টারের মাধ্যমে কিভাবে অর্থ উপার্জন করবেন?

একজন দারাজ বিক্রেতা হিসেবে, আপনি অনেক সুযোগ সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন, যার মধ্যে রয়েছে-

  • বৃহৎ গ্রাহক গোষ্ঠী অথবা সম্প্রদায়, 
  • আপনার ব্যবসায়ের জন্য একটি বিশ্বস্ত প্ল্যাটফর্ম এবং 
  • উল্লেখযোগ্যভাবে আপনার আয় বৃদ্ধির সুযোগ।

চলুন দেখে নেওয়া যাক কিভাবে দারাজে একজন বিক্রেতা হয়ে আপনি আয় করতে পারবেন-

১. একটি দারাজ সেলার অ্যাকাউন্ট তৈরি করুন

প্রথমে আপনাকে দারাজ সেলার অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। আসুন দেখি কিভাবে দারাজ সেলার অ্যাকাউন্ট সাইন আপ করবেন এবং আপনার প্রোফাইল সেট আপ করবেন। 

ডাউনলোড করুন দারাজ সেলার অ্যাপ
দারাজ সেলার সেন্টার এর মাধ্যমে কীভাবে অনলাইনে টাকা আয় করবেন? 11

দারাজ বিক্রেতা সাইন-ইন প্রক্রিয়া

  • দারাজ সেলার সেন্টারে প্রবেশ করুন
  • “সাইন আপ” এ ক্লিক করুন

রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া

  • ব্যবসার বিবরণ প্রদান করুন
  • যোগাযোগের তথ্য দিন
  • ইমেইল এবং মোবাইল নাম্বার যাচাই করুন

দারাজ বিক্রেতার প্রোফাইল সেট আপ

  • বিক্রেতা প্রোফাইল সম্পন্য করুন
  • ভালো-মানের ছবি দিন
  • পণ্যের বিবরণ দিন
  • প্রাসঙ্গিক কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন

দেখে নিনঃ কিভাবে হতে পারবেন দারাজ সেলার? এখানে, আপনি দারাজ সেলার অ্যাকাউন্ট তৈরি করা থেকে শুরু করে দারাজে-এ পণ্য তালিকাভুক্ত করার সম্পূর্ণ নির্দেশিকা পাবেন।

২. আপনার দারাজ স্টোরকে সঠিক ভাবে সাজান

দারাজ সেলার অ্যাকাউন্ট তৈরি করা শেষ হলে, এখন আপনার স্টোরকে ভালোভাবে সাজাতে হবে। আপনার দারাজ স্টোর থেকে সবচেয়ে বেশি সুবিধা পেতে, এখানে কিছু কৌশল দেয়া হল:

পণ্য তালিকা তৈরি

একটি সহজ ও স্বচ্ছ পণ্য তালিকা সম্ভাব্য গ্রাহকদের মনোযোগ অর্জন, বিক্রয় চালনা, এবং গ্রাহক সন্তুষ্টি নিশ্চিত করার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এখানে কিছু মূল উপাদান রয়েছে যা একটি কার্যকর পণ্য তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা উচিত:

পণ্যের নাম

শিরোনামটি সংক্ষিপ্ত হওয়া উচিত, তবে পণ্যটি কী তা সম্পর্কে ধারণা দেওয়ার জন্য যথেষ্ট বর্ণনামূলক হতে হবে। গ্রাহকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য এতে মূল বৈশিষ্ট্য, স্পেসিফিকেশন বা অন্যান্য বিক্রয় পয়েন্ট অন্তর্ভুক্ত করবেন।

পণ্যের ছবি

বিভিন্ন কোণ থেকে উচ্চ-রেজোলিউশনের ছবি তুলে দিতে হবে। এর ফলে গ্রাহকদের পণ্যটিকে আরও ভালভাবে বুঝতে সহায়তা করবে। ছবিগুলি পণ্যের বৈশিষ্ট্যগুলিকে প্রদর্শন করবে এবং স্বচ্ছতা নিশ্চিত করে সঠিকভাবে উপস্থাপন করতে হবে।

পণ্যের বিবরণ

পণ্যের বিবরণে পণ্যটির মাত্রা, ব্যবহৃত উপকরণ, রঙের ধরন, সামঞ্জস্যতা বা অন্য কোনো প্রাসঙ্গিক বিবরণ সহ পণ্য সম্পর্কে সমস্ত প্রয়োজনীয় তথ্য দিতে হবে। এটি পণ্যের সুবিধাগুলিকে হাইলাইট করবে এবং সম্ভাব্য গ্রাহকের অনুসন্ধানের সমাধান করবে।

পণ্যের বৈশিষ্ট্য এবং সুবিধা

পণ্যের প্রধান বৈশিষ্ট্য এবং সুবিধাগুলি হাইলাইট করার ফলে গ্রাহকরা পণ্যটি সম্পর্কে একটি সঠিক ধারনা পাবে । বুলেট পয়েন্ট বা উপশিরোনাম ব্যবহার করলে তথ্য সহজে বোঝা যায়।

গ্রাহক রেটিং

প্রকৃত গ্রাহকের রেটিং এবং অভিজ্ঞতা, আপনার পণ্যের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করতে সহায়তা করবে। ইতিবাচক কমেন্ট সম্ভাব্য গ্রাহকদের ক্রয় করতে উত্সাহিত করে থাকে।

মূল্য নির্ধারণ এবং প্রচার

স্পষ্টভাবে পণ্যের মূল্য এবং কোন ডিসকাউন্ট, বা অফার উল্লেখ করুন। শিপিং বা অতিরিক্ত খরচ সংক্রান্ত তথ্য প্রদান করুন।

মনে রাখবেন, একটি তথ্যপূর্ণ পণ্য তালিকা, পণ্যের মূল্য এবং স্বতন্ত্রতা প্রকাশ করবে, সম্ভাব্য গ্রাহকদের সাথে আস্থা তৈরি করবে এবং পণ্যটি ক্রয়ের সিদ্ধান্ত সহজ করবে।

সঠিক এবং স্বচ্ছ তথ্য

নিশ্চিত করুন যে প্রদত্ত সমস্ত তথ্য সঠিক এবং স্বচ্ছ। অস্পষ্ট বা বিভ্রান্তিকর বর্ণনা এড়িয়ে চলুন যা গ্রাহকদের অনুৎসাহিত করতে পারে।

এসইও অপ্টিমাইজেশান

দৃশ্যমানতা উন্নত করতে এবং গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে, শিরোনাম, বিবরণ এবং মেটা ট্যাগে প্রাসঙ্গিক কীওয়ার্ড দিয়ে পণ্য তালিকাকে অপ্টিমাইজ করুন। এটি সার্চ ইঞ্জিন ফলাফলে আপনার তালিকার অথবা পণ্য র‍্যাঙ্ককে উচ্চতর করতে সহায়তা করবে।

পণ্যের মূল্য নির্ধারণ

কম্পিটিটিভ প্রাইসিং হল এমন একটি কৌশল যা ব্যবসার দ্বারা তাদের দাম এমন একটি স্তরে সেট করার জন্য ব্যবহৃত হয় যা বাজারে তাদের প্রতিযোগীদের তুলনায় বা তার চেয়ে কম। 

প্রতিযোগীতামূলক মূল্যের লক্ষ্য হল গ্রাহকদের আকৃষ্ট করা এবং একই ক্যাটাগরিতে পরিচালিত অন্যান্য ব্যবসার তুলনায় প্রতিযোগিতামূলক সুবিধা লাভ করা।

প্রতিযোগীতামূলক মূল্য সফলভাবে বাস্তবায়ন করতে, ব্যবসার বিভিন্ন কারণ বিবেচনা করা উচিত, যেমন তাদের খরচ কাঠামো, বাজার, এবং মূল্য প্রস্তাব। তাদের খরচ এবং লাভের মার্জিন বোঝার মাধ্যমে, ব্যবসাগুলি এমন মূল্য নির্ধারণ করতে পারে যা প্রতিযোগিতামূলক থাকাকালীন লাভজনকতা নিশ্চিত করে।

দারাজে সেল করুন এবং টাকা আয় করুন
দারাজ সেলার সেন্টার এর মাধ্যমে কীভাবে অনলাইনে টাকা আয় করবেন? 12

৩. অর্ডার পাওয়া শুরু করুন এবং আপনার ব্যবসা বাড়ান

এটি চূড়ান্ত পদক্ষেপ যখন আপনি অর্ডার পেতে পারেন। দারাজ অ্যানালিটিক্স টুলের মাধ্যমে আপনার ব্যবসার পারফরম্যান্স ট্র্যাক করতে পারবেন যেখানে আপনি আপনার স্টোরের ওভারভিউ দেখতে পাবেন। একটি সময়ে আপনাকে আপনার ব্যবসা বাড়াতে আপনার পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে হবে।

দারাজ অ্যানালিটিক্স টুল

দারাজের অ্যানালিটিক্স টুল আপনার প্রোডাক্টের পারফরম্যান্স সম্পর্কে তথ্য প্রদান করবে। এই টুলগুলি ব্যবহার করে, আপনি আপনার পণ্যগুলি বিক্রয়, গ্রাহকের সম্পৃক্ততা এবং সামগ্রিক বাজারের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে কীভাবে পারফরম্যান্স করছে সে সম্পর্কে ভালোভাবে ধারনা পাবেন।

দারাজের অ্যানালিটিক্স টুলের অন্যতম প্রধান বৈশিষ্ট্য হল বিক্রয় ডেটা ট্র্যাক করার ক্ষমতা। আপনি কোন পণ্যগুলি সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে তা বিশ্লেষণ করতে পারেন এবং গ্রাহকের ক্রয় আচরণের যে কোনও নিদর্শন বা প্রবণতা সনাক্ত করতে পারবেন৷ এই তথ্য আপনাকে ইনভেন্টরি ম্যানেজমেন্ট, মূল্য নির্ধারণের কৌশল এবং পণ্যের প্রচার সম্পর্কে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করবে।

ব্যবসা বৃদ্ধির সুযোগ এবং সমর্থন

দারাজ বিক্রেতাদের ব্যবসা বৃদ্ধির সুযোগ সুবিধা প্রদান করে-

  • সকল ধরনের প্রয়জনীয় প্রশিক্ষণের সুবিধা দারাজ ওয়েবসাইট
  • দারাজের সকল ক্যাম্পাইনে এবং ইভেন্টে অংশ নেওয়ার সুযোগ।
  • আপনার ব্যবসা বৃদ্ধিতে দারাজ থেকে সকল ধরনের সহায়তা পাওয়ার সুযোগ।

দারাজ বিক্রেতাদের সাফলতার গল্প

এখানে আমাদের কিছু সফল দারাজ বিক্রেতার গল্প রয়েছে। হয়তো আপনি নিজেই হবেন পরবর্তী সফল দারাজ সেলার, তাই আর অপেক্ষা কেন? দারাজ বিক্রেতা হিসাবে নিবন্ধিত হন এবং এখনই দারাজ সেলার সেন্টার এর সাথে অনলাইনে অর্থ উপার্জন শুরু করুন।

শ্রেয়ান বাংলাদেশ

স্পোর্টস হাউস

বেস্ট লেদার শপ

ফুড আর্টিস্ট

জেনে নিন দারাজ সেলার সেন্টার বিষয়ে কিছু তথ্য

দারাজ সেলার সেন্টার কি?

দারাজ সেলার সেন্টার একটি অনলাইন প্ল্যাটফর্ম যেখানে কোনও ব্যক্তি এবং ব্যবসায়ী তাদের পণ্যগুলি দারাজে বিক্রি করতে দেয়, এটি বাংলাদেশের অন্যতম বৃহত্তম ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম।

আমি কিভাবে দারাজ সেলার অ্যাকাউন্ট তৈরি করব?

একটি দারাজ সেলার অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে, দারাজ সেলার কেন্দ্রের ওয়েবসাইটে যান এবং “সাইন আপ” এ ক্লিক করুন। আপনার ব্যবসার বিবরণ এবং যোগাযোগের তথ্য প্রদান করে নিবন্ধন প্রক্রিয়া অনুসরণ করুন। নিবন্ধন সম্পূর্ণ করতে আপনাকে আপনার ইমেল এবং ফোন নম্বর যাচাই করতে হবে।

একজন বিক্রেতা হিসাবে আমি দারাজে কী বিক্রি করতে পারি?

আপনি ইলেকট্রনিক্স, ফ্যাশন আইটেম, হোম অ্যাপ্লায়েন্স, বিউটি পণ্য এবং আরও অনেক কিছু সহ দারাজে সকল ধরনের পণ্য বিক্রি করতে পারবেন। নিষিদ্ধ আইটেমগুলির জন্য দারাজ-এর নীতি এবং নির্দেশিকাগুলি দেখে নিন৷

দারাজে আমি কীভাবে আমার পণ্য তালিকাভুক্ত করব?

দারাজে আপনার পণ্যের তালিকা করতে, আপনার সেলার অ্যাকাউন্টে লগ ইন করুন এবং পণ্য তালিকা তৈরি করতে সেলার সেন্টার ব্যবহার করুন। নিশ্চিত করুন যে আপনার পণ্যের নাম এবং বিবরণ রয়েছে এবং আপনার ক্রেতারা যাতে আপনার পণ্য খুব সহজেই খুজে পায় এর জন্যে সঠিক কীওয়ার্ডগুলি অন্তর্ভুক্ত করুন।

ভাল বিক্রয়ের জন্য আমি কীভাবে আমার সেলার প্রোফাইল অপ্টিমাইজ করতে পারি?

ভালো মানের পণ্যের ছবি, বিবরণ এবং প্রতিযোগিতামূলক মূল্য যোগ করে আপনার বিক্রেতার প্রোফাইল অপ্টিমাইজ করুন। আপনার পণ্য আরও সহজে খুজে পেতে আপনার পণ্য তালিকায় প্রাসঙ্গিক কীওয়ার্ড ব্যবহার করুন।

দারাজ বিক্রেতাদের জন্য কি কোনো হেল্পলাইন বা সহায়তা কেন্দ্র আছে?

হ্যাঁ, দারাজ বিক্রেতাদের জন্য আলাদাভাবে দারাজ গ্রাহক সহায়তা প্রদান করে। আপনার যেকোনো সমস্যা বা প্রশ্ন থাকলে সহায়তার জন্য আপনি দারাজের হেল্পলাইনে যোগাযোগ করতে পারবেন। যেকোনো ধরনের সহায়তার জন্য দারাজ সেলার হটলাইন (+৮৮) ০৯৬ ১০০ ০০ ১২৩ এ কল করুন, শনি থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টা থেকে সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত।

আমি কি একজন বিক্রেতা হিসাবে বাংলাদেশের নির্দিষ্ট অঞ্চলকে টার্গেট করতে পারি?

হ্যাঁ, আপনি দারাজ সেলার সেন্টার ব্যবহার করে বাংলাদেশের নির্দিষ্ট অঞ্চলকে টার্গেট করতে পারেবেন। এটি আপনাকে দারাজ সেলার সেন্টার ঢাকা, খুলনা, রাজশাহী, সিলেট এবং উত্তরার মতো বিভিন্ন এলাকায় আপনার পণ্যের মার্কেটিং এবং পণ্যের স্টক কাস্টমাইজ করতে সহায়তা করবে।

দারাজ সেলার অ্যাপ আছে কি?

হ্যাঁ, আপনার বিক্রেতার অ্যাকাউন্ট পরিচালনা করতে আপনি দারাজ সেলার অ্যাপ ডাউনলোড করতে পারেন। অ্যাপটি বিক্রেতাদের তাদের তালিকা পর্যবেক্ষণ ও আপডেট করার সুবিধা প্রদান করে।

ডাউনলোড করুন দারাজ সেলার অ্যাপ
দারাজ সেলার সেন্টার এর মাধ্যমে কীভাবে অনলাইনে টাকা আয় করবেন? 13

দারাজে বিক্রয়ের সাথে সম্পর্কিত কোন ফি আছে?

দারাজ তাদের প্ল্যাটফর্মে বিক্রয় সংক্রান্ত কমিশন ফি এবং অন্যান্য ফি নিয়ে থাকে। প্ল্যাটফর্মে বিক্রয়ের সাথে সম্পর্কিত খরচগুলি বোঝার জন্য দারাজের ফি কাঠামো এবং নীতিগুলি পর্যালোচনা করুন।

একজন দারাজ বিক্রেতা হিসেবে আমি কীভাবে আমার বিক্রয় বাড়াতে পারি?

দারাজে আপনার বিক্রয় সর্বাধিক করতে, ভালো গ্রাহক পরিষেবা প্রদানের উপর ফোকাস করুন, নিয়মিতভাবে আপনার পণ্য তালিকা আপডেট করুন, প্রতিযোগিতামূলক মূল্য অফার করুন এবং আপনার পণ্যগুলিকে সঠিকভাবে প্রচার করতে দারাজ -এর মার্কেটিং সরঞ্জাম এবং সংস্থানগুলি ব্যবহার করুন।

পরিশেষে

বাংলাদেশে দারাজ সেলার সেন্টারের মাধ্যমে একজন দারাজ বিক্রেতা হওয়া হল অনলাইনে অর্থ উপার্জন এবং একটি বিশাল গ্রাহক বেস পর্যন্ত পৌঁছানোর একটি চমৎকার উপায়। আপনার অনলাইন ব্যবসায়িক অবস্থান প্রতিষ্ঠা করতে এবং দারাজ বিক্রেতা হিসাবে আপনার সাফল্যকে সর্বাধিক করতে ধাপে ধাপে নির্দেশিকা অনুসরণ করুন।

দারাজে যেসকল বিক্রেতা রয়েছে তাদের একটি বৃহৎ গ্রাহক বেস পর্যন্ত পৌঁছানোর, তাদের ব্যবসা বৃদ্ধি করানো এবং লজিস্টিক সুবিধা লাভের যথেষ্ট সুযোগ প্রদান করে। এই নির্দেশিকায় দেওয়া টিপস এবং কৌশলগুলি ব্যবহার করে, আপনি আপনার সাফল্যের সম্ভাবনা বৃদ্ধি এবং প্ল্যাটফর্মে উন্নতি করতে পারবেন।

তাহলে আর অপেক্ষা কেন? দারাজে আজই সাইন আপ করুন এবং আপনার অনলাইন ব্যবসাকে নতুন সম্ভাবনায় নিয়ে যান!

দারাজে সেল করুন এবং টাকা আয় করুন
দারাজ সেলার সেন্টার এর মাধ্যমে কীভাবে অনলাইনে টাকা আয় করবেন? 14
Spread the love

দারাজ অ্যাপের সবচেয়ে আকর্ষণীয় ৭ টি বিষয় দেখে নিন একনজরে 2 7884

দারাজ যে কারনে সেরা অনলাইন অ্যাপ
Last updated on জানুয়ারি 8th, 2024 at 03:32 অপরাহ্ন

দারাজ অ্যাপ নিঃসন্দেহে বলা যায় বাংলাদেশের এক নম্বর অনলাইন শপিং অ্যাপ (Number One Online Shopping App)! সেপ্টেম্বর ২০১৭ সালে চালু হয় দারাজ অ্যাপের নতুন ভার্সন, যেখানে কাজে লাগানো হয়েছে টেক জায়ান্ট আলিবাবার টেকনোলজি। ইতিমধ্যেই দারাজ গ্রাহকদের কাছে সাড়া জাগিয়ে তুলেছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (AI) সম্পন্ন এই অ্যাপ! বেশ কিছু গ্রাহককে আমরা জিজ্ঞাসা করেছিলাম দারাজের কোন বিষয়টি তাদের সবচেয়ে ভালো লাগে? তাদের অধিকাংশের উত্তর ছিল দারাজের ফাস্ট ও অত্যাধুনিক (Fast and Developed) প্রযুক্তির অ্যাপ !

কেন দারাজ অ্যাপ অনলাইন শপিং এর সেরা অ্যাপ ?

তো কি ব্যতিক্রম আছে দারাজের এই অ্যাপে? চলুন জেনে নেই আজকের এই লেখাটি থেকে :

১) সবচেয়ে বেশি ডাউনলোড

দারাজ অ্যাপ বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ডাউনলোড হওয়া শপিং অ্যাপ (APP)। বর্তমানে দারাজ অনলাইন শপিং অ্যাপ গুগল প্লেস্টোরে ডাউনলোড হয়েছে ৫০ মিলিয়ন এরও বেশি, যা বাংলাদেশের প্রথম সারির সকল শপিং অ্যাপের সমন্বিত ডাউনলোডের চেয়েও বেশি। জনপ্রিয় এই অ্যাপটির বর্তমান সাইজ আছে ৬২ মেগাবাইট এবং ৩.৩৭ মিলিয়নের বেশি গ্রাহক দারাজ অ্যাপটির রিভিউ করেছেন।

২) কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা

enjoy advanced artificial intelligence of daraz app

দারাজ অ্যাপ বাংলাদেশের একমাত্র শপিং অ্যাপ যেখানে আছে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (ARTIFICIAL INTELLIGENCE) বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা। দারাজ অ্যাপ এমন ভাবে প্রোগ্রাম করা যা আপনার আগ্রহ এবং সার্চ প্যাটার্ন এর উপর ভিত্তি করে আপনাকে পণ্য সাজেস্ট করবে। আপনি যেমনটা ভাববেন দারাজ অ্যাপে ঠিক তেমনি পণ্যের সাজেশন আসতে থাকবে আপনার জন্যে!

৩) পিসিআই ডিএসএস সার্টিফিকেট

enjoy PCI certification on Daraz App

দারাজ অ্যাপে আপনার জন্য আছে ক্রেডিট কিংবা ডেবিট কার্ড সেভ করে রাখার সুবিধা! একবার কার্ড সেভ করলে পরবর্তীতে আপনাকে বারবার কার্ডের তথ্য দেওয়ার ঝামেলায় পড়তে হবে না! দারাজ হল PCI compliant platform যা নিশ্চিত করবে আপনার নিরাপদ ও সুরক্ষিত লেনদেন।

৪) মোবাইল রিচার্জ বা ফ্লেক্সি লোড সুবিধা

enjoy instant top up facility of daraz app

একটি শপিং অ্যাপ এর মাধ্যমে আপনি টপ আপ করতে পারছেন! কিছুটা অবাক করার মতো বিষয় হলেও দারাজ অ্যাপ থেকে আপনি আপনার প্রয়োজনে বাংলালিংক, গ্রামীণফোন, রবি এবং টেলিটক অপারেটরে রিচার্জ করতে পারবেন। তাছাড়া মাঝে মাঝে টপ আপে ডিসকাউন্ট উপভোগ করা সম্ভব শুধুমাত্র দারাজ অ্যাপ থেকেই।

৫) রিভিউ, সেলার রেটিং এবং সেলারদের সাথে সরাসরি চ্যাট

Image Review, Product Rating and Customer Chatting Service of Daraz.com.bd

দারাজ APP একমাত্র শপিং অ্যাপ যেখানে আপনি পণ্য ক্রয় করার পর সেই পণ্যের ছবিসহ রিভিউ দিতে পারবেন, পারবেন কোন পণ্য অর্ডার করার পূর্বে Seller এর সাথে chatting করে পণ্য সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানার সুযোগ! তাছাড়া যেকোন প্ৰয়োজনে দারাজ অ্যাপ থেকেই আপনি দারাজ কাস্টমার কেয়ার এজেন্টের সাথে চ্যাট করতে পারবেন।

৬) দারাজ কয়েন দিয়ে শপিং

dCoins program

দারাজ অ্যাপ থেকে শুধু শপিং নয়, এখন থাকছে কয়েন জেতার সুযোগও। ডিকয়েন্স (dCoins) প্রোগ্রামের মাধ্যমে প্রতিদিন দারাজ অ্যাপ ভিজিট করে জিতে নিতে পারবেন নির্দিষ্ট সংখ্যক কয়েন- যার মাধ্যমে পরে শপিং করতে পারবেন দারুণ সব ভাউচারের মাধ্যমে, আরো সাশ্রয়ী মূল্যে

৭) দারাজ লাইভ দেখার সুযোগ

dCoins program

সাম্প্রতিক সময়ে দারাজ ক্রেতাদের কেনাকাটায় দারুণ অভিজ্ঞতা যোগ করেছে দারাজ লাইভ বা ডিলাইভ (dLive)। দারাজ লাইভ ক্রেতা ও খুচরা বিক্রেতাদের মধ্যে এক ধরণের সংযোগ স্থাপন করে। এর ফলে ভিডিও স্ট্রীমের মাধ্যমে লাইভ দেখার পরেই আপনি পণ্য দেখেশুনে অর্ডার করতে পারবেন।

এছাড়াও দারাজে আছে অগণিত আকর্ষণীয় ফিচার। তো আর দেরি কেন? সময়ের সেরা দারাজ অ্যাপের মাধ্যমে ভিজিট করতে পারেন দারাজ – আরো দারুণ সব ডিলস যেখানে অপেক্ষা করছে শুধুমাত্র আপনার জন্য।

আরও পড়তে পারেন,

>> Best Online Shopping App in Bangladesh <<

Cricket Lover? Enjoy live cricket streaming free on Daraz App Now.

Spread the love