নতুন বছরে সাফল্যের ধারা অব্যাহত রাখার প্রত্যয়ে নতুন রূপে এলো দারাজ! 0 2537

Last updated on ডিসেম্বর 21st, 2023 at 01:16 অপরাহ্ন

অবশেষে নিজেদের নতুন লোগো ও ব্র্যান্ড লুক উন্মোচন করল দক্ষিণ এশিয়ার শীর্ষস্থানীয় ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম দারাজ(daraz.com.bd)। বিগত বছরের ব্যাপক সাফল্যের ধারা অব্যাহত রাখতেই সকলের কাছে নিজেদের নতুন রুপে তুলে ধরল ইকমার্স প্ল্যাটফর্মটি।

দারাজ গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও বিয়ার্কে মিকেলসেন মনে করেন দারাজের এই নতুন সূচনা প্রতিষ্ঠানটিকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে অনন্য ভূমিকা রাখবে।

তিনি বলেন, বিগত ৭ বছরে দারাজের ব্যবসায়িক পরিধি অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে এবং এখনই সময় দারাজের নতুন এক অধ্যায়ে পদাপর্ণ করার। নতুন এ অধ্যায়ে দারাজের মূল লক্ষ্য থাকবে ক্রেতার জন্য উন্নত এবং আনন্দদায়ক অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করা। তিনি আরও বলেন, ব্র্যান্ডের নতুন লুক এখনও দারাজের মূল ভ্যালুগুলোই ধারণ করে, একই সাথে নতুন দারাজে যুক্ত হচ্ছে পারসোনালাইজড এক্সপেরিয়েন্স যাতে করে প্ল্যাটফর্মে ক্রেতা ও বিক্রেতা আরও দৃঢ়ভাবে সংযুক্ত হতে পারেন।

ব্র্যান্ডকে নতুন রূপে প্রকাশ করার পেছনে দারাজের অন্যতম উদ্দেশ্য হচ্ছে, দক্ষিণ এশিয়ার পাঁচটি দেশ যথা বাংলাদেশ, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, নেপাল এবং মিয়ানমারে দারাজকে মানুষের দৈনন্দিন জীবনের অন্যতম অংশে পরিণত করা।

মিকেলসেন আরও বলেন, “এই লক্ষ্য অর্জনের জন্য আমাদের গ্রাহকদের অভিজ্ঞতা উন্নত করতে হবে, গ্রাহকদের কেনাকাটার যাত্রার প্রতিটি ধাপে মানসম্পন্ন পণ্য ও সেবা নিশ্চিত করতে হবে এবং গ্রাহকদের বিনোদন প্রদান ও যুক্ত করার নতুন উপায় তৈরি করতে হবে. এসব গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে আমাদের সেবা উন্নত ও বিকশিত করার ক্ষেত্রে ব্র্যান্ড রিফ্রেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।”

দারাজকে নতুন আঙ্গিকে হাজির করার ক্ষেত্রে অন্যতম পরিবর্তন হচ্ছে এর নতুন আইকন। কীভাবে ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম এসএমই বিক্রেতাদের ক্রেতাদের সাথে যুক্ত করছে, তা তুলে ধরতে প্রতীক হিসেবে কাজ করে আইকনটি। আইকনের কেন্দ্রে একটি তীর রয়েছে, যা প্রবৃদ্ধি এবং দ্রুত ডেলিভারিতে দারাজের বিশেষ গুরুত্ব প্রদানের ওপর আলোকপাত করে। এটি দেখতে একটি ‘প্লে বাটন’ এর মতো, যা ব্যবহারকারীদের জন্য আরও অসাধারণ কনটেন্ট অভিজ্ঞতা তৈরিতে দারাজ যে নিরলস উদ্ভাবন করছে, তা প্রকাশ করে।

দারাজ বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ মোস্তাহিদাল হক বলেন, “নতুন দারাজ এমন এক শপিং অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করার অঙ্গীকার নিয়ে আসছে যা আগে কখনও ছিল না। আপনাদের সকলকে ই-কমার্সের নতুন এক যুগে স্বাগতম যেখানে দারাজ আপনার দৈনন্দিন জীবনের অংশ হিসেবে নতুন এক সংযোজন।

গ্রাহকের স্বাচ্ছন্দ্য নিশ্চিত করতে ও দারাজের অভ্যন্তরীন ব্র্যান্ড যেমন দারাজ মল, দারাজ মার্ট ইত্যাদির মাঝে সাধারণ অবিচ্ছন্দতা সৃষ্টি করতে এই নতুন যাত্রা গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখবে। পাশাপাশি, দারাজ একটি নতুন ওয়েবসাইটও (Daraz.com) চালু করেছে, যা নতুন ব্র্যান্ডটিকে তুলে ধরবে এবং দারাজের পরিচয় ও এর কার্যক্রম সম্পর্কে মানুষকে আরও ভালোভাবে বুঝতে সহায়তা করবে।

Spread the love
Previous ArticleNext Article

মন্তব্য করুন

কিভাবে দারাজ অ্যাপ থেকে শপিং করবেন? 60 45107

Last updated on ডিসেম্বর 26th, 2023 at 12:36 অপরাহ্ন

নতুন দারাজ অ্যাপে শপিং হবে এখন আরো সহজে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন দারাজ মোবাইল অ্যাপ হতে পারে অনলাইন কেনাকাটায় আপনার বিশ্বস্ত সঙ্গী। এখন সহজ কিছু ধাপে অর্ডার করলেই আঙ্গুলের ডগায় হাজির হওয়া বিশাল পণ্যতালিকা থেকে আপনার ঘরের দরজায় হাজির হবে পছন্দের সেরা পণ্যটি। বিশেষভাবে জনপ্রিয় দারাজ ক্যাম্পেইন উপলক্ষে দারুণ সব ডিল অপেক্ষা করছে আপনার জন্য, জানতে এখনই ভিজিট করুন বিশ্বের সবচেয়ে বড় অনলাইন শপে।

অ্যাপ থেকে সহজে শপিং করার পদ্ধতি

চলুন একনজরে দেখে নেয়া যাক দারাজ অ্যাপের মাধ্যমে কিভাবে অতি সহজে সারতে পারবেন অনলাইন শপিং

১) আপনার ফোনে যদি এখনও নতুন দারাজ অ্যাপটি না থাকে তবে দ্রুত গুগল প্লেস্টোরের এই ঠিকানায় গিয়ে ইনস্টল করে নিন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন এই অত্যাধুনিক অ্যাপটি।

daraz-app (দারাজ অ্যাপ)

২) এবার দারাজ অ্যাপটি ওপেন করে উপরের সার্চবার কিংবা ব্যানারের নিচে একেবারে ডান কোণার লাল কালি চিহ্নিত ‘ধরণ’ বা ‘Categories’ মেনুর মাধ্যমে পছন্দের পণ্যটি বেছে নিয়ে ক্লিক করুন।

daraz-app (দারাজ অ্যাপ)

৩) যেখানে আপনার পণ্য ডেলিভারি দেয়া হবে সেই ঠিকানা যদি পরিবর্তন করতে চান, তবে প্রোডাক্ট পেইজে ডেলিভারি অপশনের নিচের দেয়া ঠিকানার পাশে ‘পরিবর্তন করুন’ বা ‘CHANGE’ বাটনে ক্লিক করে সহজেই ডেলিভারির ঠিকানা পরিবর্তন করে নিতে পারেন। তারপর নিচের ‘এখনই কিনুন’ বা ‘Buy Now’ বাটনে ক্লিক করে চেকআউট পেইজে যান।

daraz-app (দারাজ অ্যাপ)

৪) এবার চেকআউট পেইজের নিচের দিকে লাল কালি চিহ্নিত ঘরে ভাউচার কোডটি (যদি থাকে) লিখে ‘প্রযোজ্য’ বা ‘APPLY’ বাটনে ক্লিক করুন। এরপর একেবারে নিচের ‘অর্ডার প্লেস করুন’ বা ‘Place Order’ বাটনে ক্লিক করুন।

daraz-app (দারাজ অ্যাপ)

৫) এবার পেমেন্ট মেথড সিলেকশন পেইজের তিনটি অপশন ‘ক্রেডিট/ডেবিট কার্ড’, ‘বিকাশ’ ও ‘নগদ মূল্যে ডেলিভারি (ক্যাশ অন ডেলিভারি)’-এর মধ্য থেকে নিজের সুবিধানুযায়ী মূল্য পরিশোধের মাধ্যমটি নির্বাচন করুন।

daraz-app (দারাজ অ্যাপ)

৬) নির্বাচিত মেনুর মাধ্যমে নির্দিষ্ট পেমেন্ট পেইজে গেলে একেবারে নিচে ‘এখন পরিশোধ করুন’ বা ‘Pay Now’ বাটন দেখতে পাবেন। ক্যাশ অন ডেলিভারির ক্ষেত্রে সেখানে ক্লিক করলেই আপনার অর্ডারটি সফলভাবে গ্রহণ করে আপনাকে একটি অর্ডার নাম্বার প্রেরণ ও কবে নাগাদ আপনার অর্ডারটি ডেলিভার করা হবে তা জানিয়ে দেয়া হবে। ভবিষ্যতের জন্য অর্ডার নাম্বারটি সংরক্ষণ করুন। সেই সাথে আপনার ফোনে বা মেইলে একটি কনফার্মেশন মেসেজ পৌঁছে যাবে।

daraz-app (দারাজ অ্যাপ)

৭) এছাড়া বিকাশ পেমেন্ট মেথড নির্বাচন করলে পরবর্তী পেইজে আপনার অর্ডারটি গ্রহণ করে একটি রেফারেন্স নাম্বার প্রদান করা হবে। এরপর পেইজের নিচে উল্লেখিত পেমেন্টের নিয়মাবলিসমূহ অনুসরণ করে নিজের মোবাইল থেকে উক্ত রেফারেন্স নম্বরটি ব্যবহার করে বিকাশে পেমেন্ট করুন। 

daraz-app (দারাজ অ্যাপ)

কিংবা ডেবিট অথবা ক্রেডিট কার্ড নির্বাচন করে পরের পেইজে আপনার কার্ডের প্রয়োজনীয় তথ্যাদি দিয়ে কার্ডে অনলাইন পেমেন্ট নিশ্চিত করুন।

daraz-app (দারাজ অ্যাপ)

অভিনন্দন! আপনি সফলভাবে দারাজ বাংলাদেশে পছন্দের পণ্যটি অর্ডার করে ফেলেছেন। এরপর আপনাকে আর শুধু একটা কাজই করতে হবে, পছন্দের পণ্যটি দরজায় টোকা দেবার আগ পর্যন্ত অপেক্ষা। বুঝতেই পারছেন- এবার নিরাপদ অনলাইন শপিং হবে আরো দ্রুত গতিতে, আরো সহজে, দারাজ মোবাইল অ্যাপে। হ্যাপি শপিং !

Spread the love

পহেলা বৈশাখ ১৪৩০ – ইতিহাস ও বৈশাখী মেলার আদ্যপান্ত 0 4655

Last updated on জুন 6th, 2023 at 12:24 অপরাহ্ন

পহেলা বৈশাখ – ১ লা বৈশাখ ১৪৩০, ১৪ ই এপ্রিল ২০২৩

পহেলা বৈশাখ কি?

বাঙ্গালীর উৎসব পহেলা বৈশাখ। পহেলা বৈশাখ বা নববর্ষ সুপ্রাচীন বাঙালি সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের অংশ। বাংলা পঞ্জিকার প্রথম মাস বৈশাখের প্রথম দিনটিকে পালন করা হয় বাংলা নববর্ষ অথবা বাঙ্গালীর বৈশাখী মেলা হিসেবে। এদিন বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গে নানা আড়ম্বর-আয়োজনের মাধ্যমে বরণ করে নেওয়া হয় নতুন বাংলা বছরকে। আগামী দিনের সম্ভবনা আর সমৃদ্ধি কামনায় উৎসবে মেতে ওঠে গোটা জনপদ।

পহেলা বৈশাখের ইতিহাস

বাংলা নববর্ষ বা পহেলা বৈশাখের ইতিহাসের সাথে জড়িয়ে আছে বাংলার সবুজ কৃষি নির্ভর সভ্যতা ও মুঘল সম্রাট আকবরের নাম। বাংলা পঞ্জিকা আসার আগে এদেশে কর আদায় করা হতো হিজরি পঞ্জিকা বা আরবী মাসের সাথে মিলিয়ে। কিন্তু চাঁদের উপর নির্ভরশীল আরবী পঞ্জিকার সাথে ফসল উৎপাদন ও খাজনা আদায়ের সময়কাল পুরোপুরি সুবিধাজনক না হওয়ায় সম্রাট আকবর প্রাচীন বাংলা বর্ষপঞ্জীতে সংস্কার আনেন। প্রথমদিকে এর নাম ছিলো ফসলি সন। পরে এটি বঙ্গাব্দ নামে পরিচিত হয়ে ওঠে।

পহেলা বৈশাখের গান

এসো হে বৈশাখ, এসো এসো ¶¶¶¶¶¶¶¶¶

পয়লা বা পহেলা বৈশাখ বাঙালির প্রাণের উৎসব। সারাদেশে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে রবি ঠাকুরের চিরসবুজ গান ‘এসো হে বৈশাখ’-এর তালে তালে মেতে ওঠে গোটা জনপদের মানুষ। পহেলা বৈশাখের তাৎপর্য শুধুমাত্র আনন্দ-উৎসবেই সীমাবদ্ধ নয়- বরং এতে লুকিয়ে আছে পুরাতনকে সাথে নিয়ে, জরা-দুর্দশাকে শক্তিতে পরিণত করে সামনে এগিয়ে যাবার প্রত্যয়।

পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠান, খাবার ও সংস্কৃতি

প্রতি বছরের মতো এবারও নতুন বাংলা বছর ১৪৩০ সনকে বরণ করে নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে। ইংরেজী ক্যালেন্ডার অনুযায়ী পহেলা বৈশাখ ২০২৩ সালের ১৪ এপ্রিল পালিত হবে। প্রচলিত বাংলা বর্ষবরণের অন্যান্য উপকরণের মতো এবারও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের তত্ত্বাবধানে মঙ্গল শোভাযাত্রা, রমনা বটমূলে পান্তা-ইলিশের সাথে সাথে পহেলা বৈশাখের কবিতা, ছবি, চিঠি ও সঙ্গীতের মাধ্যমে উদযাপন করা হবে নতুন বাংলা বছরকে। সাথে থাকবে বৈশাখী মেলা, নৌকা বাইচ, পুতুলনাচসহ আরো সব ঐতিহ্যবাহী আনন্দ-উৎসব অনুষঙ্গ।

নতুন সব বর্ণিল পোষাকে সজ্জিত নারী-পুরুষ-শিশুদের আনন্দ কোলাহলে বাংলা নববর্ষ বেঁচে থাকুক আরো হাজার বছর- বাংলা ও বাঙালির শেকড়ের উৎসব হিসেবে, নতুনকে জয় করা ও সামনে এগিয়ে যাবার প্রত্যয়ে।

পহেলা বৈশাখ – অনলাইন কেনাকাটা

মেয়েদের পহেলা বৈশাখী কেনাকাটা অনলাইনে

ছেলেদের পাঞ্জাবী বৈশাখে

বৈশাখী রান্না
পহেলা বৈশাখ ১৪৩০ - ইতিহাস ও বৈশাখী মেলার আদ্যপান্ত 18

বৈশাখে ঘরের সাজ
পহেলা বৈশাখ ১৪৩০ - ইতিহাস ও বৈশাখী মেলার আদ্যপান্ত 19

নতুন বছরকে বরণ করতে নিশ্চিতভাবেই আপনার লাগবে বেশ কিছু অত্যাবশ্যকীয় বৈশাখী পোশাক, খাদ্য সামগ্রী ও বাহারী বৈশাখী উপকরণ। পয়লা বৈশাখে কেউ চাইবেন বৈশাখের রঙ্গে নিজেকে রাঙ্গাতে নতুন বৈশাখী পাঞ্জাবি কিংবা পহেলা বৈশাখের শাড়ি পড়তে। কেউবা চাইবেন পান্তা ইলিশ দিয়েই শুরু হবে নতুন বছর। কিংবা আপনার প্রয়োজন হতে পারে ঢোল, বাশি, ভূভুজেলা কিংবা ঐতিহ্যবাহী যে কোন বৈশাখী সরঞ্জাম। দারাজ অনলাইন শপ ক্রেতাদের জন্য তাই প্রতিবছরের ন্যায় এবারো আয়োজন করতে যাচ্ছে পহেলা বৈশাখ সেল উৎসব ১৪৩০ সাল। চলতি বছরের এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া বৈশাখী ক্যাম্পেইনটি চলবে একেবারে পহেলা বৈশাখ(pohela boishakh) পর্যন্ত। শুভ নববর্ষ!

Spread the love